The news is by your side.

দেড়শ বছরে পাকিস্তানের অর্থনীতিকে ছাড়িয়ে গেছে টাটা গ্রুপ

0 128

 

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে টাটা গ্রুপ অব কোম্পানির মোট সম্পদের পরিমাণ ৩৬ হাজার ৫০০ কোটি ডলারে পৌঁছেছে। এই সম্পদ টাটা গোষ্ঠীকে ভারতের সবচেয়ে মজবুত সংস্থা বানিয়েছে। সেই হিসেবে টাটা গোষ্ঠীর মোট সম্পত্তি পাকিস্তানের ‘গ্রস ডোমেস্টিক প্রোডাক্ট’ বা জিডিপির চেয়েও বেশি।

ভারতের রিলায়েন্স গ্রুপের প্রধান মুকেশ আম্বানি আর আদানি গ্রুপের প্রধান গৌতম আদানি বরাবরই বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের কাতারে জায়গা করে নেন। এ নিয়ে আলোচনাও হয় বেশ। তবে এদের মধ্যে টাটার নাম তেমন একটা শোনা যায় না।

অথচ চা থেকে শুরু করে জাগুয়ার ল্যান্ড রোভার গাড়ি এবং লবণ তৈরি থেকে বিমান পরিষেবা বা হোটেল গ্রুপ চালানো, জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে টাটা গোষ্ঠীর প্রভাব দৃশ্যমান। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে টাটা গ্রুপের মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন ছিল আনুমানিক ৩৬ হাজার ৫০০ কোটি ডলার।

ইন্টারন্যাশানাল মানিটারি ফান্ড (আইএমএফ) সম্প্রতি জানিয়েছে তাদের অনুমান অনুযায়ী পাকিস্তানের জিডিপি ৩৪ হাজার ১০০ কোটি ডলার৷ অর্থাৎ, পাকিস্তানের জিডিপিকে ছাড়িয়ে গিয়েছে টাটা গোষ্ঠীর মোট সম্পদ।

আমরা যদি শুধু টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিসের কথাই বলি, তাহলে এই কোম্পানির সম্পদ হল ১৭ হাজার কোটি মার্কিন ডলার। এর মোট সম্পদ পাকিস্তানের অর্থনীতির প্রায় অর্ধেক। আর টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিসেস হল ভারতের দ্বিতীয় সবচেয়ে বড় সংস্থা।

টাটার পথ চলা

আজকের অবস্থানে আসতে টাটা গ্রুপের প্রায় দেড়শো বছর সময় লেগেছে। কিন্তু একাধিক ক্ষেত্রে প্রথম ভারতীয় সংস্থা হিসেবে নিজেদের ছাপ রেখেছে টাটা গ্রুপ।

লোনাভালা বাঁধের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার সময় ৮ই ফ্রেব্রুয়ারি ১৯১১ সালে টাটা গ্রুপের প্রধান স্যার দোরাবজি টাটা তার বাবা জামশেদজি টাটার চিন্তাভাবনার কথা বলেছিলেন। দোরাবজি টাটা ১৮৬৮ সালে এই কোম্পানির ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। এই শিল্প গোষ্ঠীর অধীনে ১০টি ভিন্ন ভিন্ন খাতে ব্যবসা করে এরকম ৩০টি কোম্পানি রয়েছে।

দোরাবজি টাটা বলেছিলেন, ‘আমার বাবার জন্য, সম্পদ উপার্জন করা অনেক পরের বিষয় ছিল। তিনি এদেশের মানুষের শিল্প ও সামগ্রিক অবস্থার উন্নয়নকে সব সময় অগ্রাধিকার দিয়ে এসেছেন। তিনি তার জীবনে বিভিন্ন সময়ে যে প্রতিষ্ঠানগুলি শুরু করেছিলেন তার আসল উদ্দেশ্য ছিল সেই সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে উন্নয়ন।’

প্রচলিত আছে, ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে টাটার প্রতিষ্ঠাতা জামসেটজি টাটাকে তার চেহারার কারণে বোম্বের একটি দামি হোটেলে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। এই ঘটনা তার ওপর তীব্র প্রভাব ফেলেছিল। তিনি স্থির করেন এর চেয়ে অনেক ভাল একটি হোটেল তৈরি করবেন তিনি যেখানে প্রত্যেক ভারতীয়দের আসা যাওয়ার অনুমতি থাকবে।

প্রথম বিলাসবহুল হোটেল

১৯০৩ সালে মুম্বইয়ে সমুদ্রের ধারে তাজ হোটেল তৈরি হয়। এই হোটেল মুম্বই শহরের একমাত্র ইমারত ছিল যেখানে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, আমেরিকান পাখা ও জার্মান লিফটের ব্যবস্থা ছিল। ইংরেজ খানসামারা এই হোটেলের কর্মচারী হিসেবে কাজ করতেন। এখন আমেরিকা ও ব্রিটেনসহ নয়টি দেশে এর শাখা রয়েছে।

জামশেদজি টাটা ১৮৩৯ সালে একটি ফারসি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পূর্বপুরুষদের অনেকে ফারসি ধর্মগুরু ছিলেন।

তিনি কাপাস (এক ধরনের তুলা), চা, তামা, পিতল, এবং আফিমের (সে সময় বেআইনি ছিল না) ব্যবসায়ে প্রচুর অর্থ রোজগার করেন। পুরো বিশ্ব ঘুরে দেখেছিলেন এবং নতুন নতুন আবিষ্কার দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন জামশেদজি টাটা।

ব্রিটেন সফরের সময় ল্যাঙ্কাশায়ারে কটন মিল দেখার পর তিনি বুঝতে পেরেছিলেন এই ক্ষেত্রে ভারত প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে।

প্রথম টেক্সটাইল কোম্পানি

সালটা ১৮৭৭। ‘মহারানী মিলস’ নামে দেশের প্রথম টেক্সটাইল মিল খোলেন জামশেদজি টাটা। কুইন ভিক্টোরিয়াকে যেদিন ভারতের সম্রাজ্ঞী হিসাবে মুকুট পরানো হয়েছিল সেদিন ‘মহারানী মিলস’-এর উদ্বোধন করা হয়।

প্রথম শিল্প শহর

জামশেদজি টাটার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন ছিল একটি ইস্পাত কারখানা তৈরি করা। কিন্তু এই স্বপ্ন পূরণ হওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়। ছেলে দোরাবজি টাটা তার বাবার মৃত্যুর পর সেই স্বপ্ন পূরণ করেন।

টাটা স্টিল ১৯০৭ সালে উৎপাদন শুরু করে। এইভাবে ভারত এশিয়ার প্রথম দেশ হয়ে ওঠে, যেখানে একটি ইস্পাত কারখানা তৈরি করা হয়েছিল।

প্রথম বিমান পরিষেবা

টাটা পরিবারের আরেক সদস্য জাহাঙ্গীর টাটা ১৯৩৮ সালে ৩৪ বছর বয়সে কোম্পানির চেয়ারম্যান হন এবং প্রায় অর্ধ শতাব্দী ধরে এই পদে ছিলেন। একজন শিল্পপতি হওয়ার চেয়ে বিমান চালক হওয়ার বিষয়ে বেশি আগ্রহ ছিল তার। জাহাঙ্গীর টাটার এই আগ্রহ জন্মেছিল লুই ব্লেরাইটের সঙ্গে দেখা হওয়ার পর।

লুই ব্লেরাইট প্রথম বিমান চালক ছিলেন যিনি ইংলিশ চ্যানেলের ওপর দিয়ে বিমান উড়িয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন।

বিমানপথ মারফত ডাক পরিষেবা তিনিই ভারতের প্রথম চালু করেন। ওই বিমানে প্রায়শই ডাকের সঙ্গে যাত্রীও বহন করা হতো। পরে এই ডাক পরিষেবা ভারতের প্রথম বিমান পরিষেবা ‘টাটা এয়ারলাইনস’ হয়ে ওঠে, যার নাম কিছু সময়ের পর পরিবর্তন করে ‘এয়ার ইন্ডিয়া’ রাখা হয়।

কম্পিউটারের দুনিয়ায় প্রবেশ

টাটা গ্রুপের প্রধান জেআরডি টাটা পরিবারের ঐতিহ্য বজায় রেখে ১৯৬৮ সালে এমন একটি ব্যবসা শুরু করেন যা সেই সময়ে শুধু উন্নত দেশগুলোতে প্রচলিত ছিল। এই ব্যবসা ছিল কম্পিউটার-সম্পর্কিত।

‘টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিসেস’ বা ‘টিসিএস’ নামক এই সংস্থাটি সারা বিশ্বে সফটওয়্যার সরবরাহ করে। বর্তমানে এটি টাটা গ্রুপের অন্যতম লাভজনক কোম্পানি।

টাটা গোষ্ঠীর সাফল্যের রহস্য

৩১শে জুলাই, ২০২৩ পর্যন্ত, টাটা তাদের সম্পদ ৩০ হাজার কোটি ডলার বলে ঘোষণা করেছিল এবং জানিয়েছিল সারা বিশ্বে তাদের দশ লাখের বেশি কর্মী রয়েছেন। কোম্পানির তথ্য অনুযায়ী, টাটা এন্টারপ্রাইজ নিজেদের পরিচালনা পর্ষদের নেতৃত্বে এবং তত্ত্বাবধানে স্বাধীনভাবে কাজ করে।

টাটার অসাধারণ সাফল্য সম্পর্কে আমরা অর্থনৈতিক বিশ্লেষক শঙ্কর আইয়ার বলেন, ‘আম্বানি বা আদানির নাম (প্রকাশ্যে) আসে কারণ তাদের সংস্থাগুলো ব্যক্তিগত। টাটা বিভিন্ন সংস্থার একটি গোষ্ঠী এবং একটি ট্রাস্টের অধীনে পরিচালিত হয়। তাই এই সংস্থাকে নিয়ে সেভাবে আলোচনা করা হয় না।’

কর্পোরেট জগতে এই ধরনের তুলনা তিনি সঠিক বলে মনে না করলেও ভারতে অনেক বিষয়ে টাটা গোষ্ঠীর মর্যাদা ‘মায়ের’ মতো বলে মনে করেন তিনি।

জিই ইন্ডিয়ার অ্যালস্টম ইন্ডিয়া’র প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং বর্তমানে হয়সাং ইন্ডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাগেশ তিলওয়ানি বলেন, ‘টাটার বৃদ্ধির প্রধান কারণ হল এর নৈতিক, ন্যায় ও স্বচ্ছ ব্যবস্থা যা কর্মীদের সঙ্গে একটি শক্তিশালী বন্ধন তৈরি করে।’

তিলওয়ানির মতে, মূলধন বিনিয়োগের প্রতি টাটার একটি সুস্পষ্ট দৃষ্টি ও কৌশল রয়েছে, যার উপযুক্ত উদাহরণ হল স্টারবাকস, ক্রোমা কনসেপ্ট এবং জাগুয়ার ব্র্যান্ড ইত্যাদি কেনা।

তার মতে টাটা গোষ্ঠী তাদের কর্পোরেট সোশ্যাল রেশপন্সিবিলিটির কথা মাথায় রেখে ‘ব্র্যান্ড পজিশনিং’ করেছে। এই কারণে, সারা দেশে ভোক্তারা তাদের সঙ্গে যুক্ত এবং তারা নিরাপদ বোধ করেন। তাদের কাছে এই ব্র্যান্ডটি বিশ্বস্ত এবং সৎ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.