The news is by your side.

হংসিকা মোটবানী: বলিউড কাঁপাচ্ছেন দুই যুগেরও বেশি সময়

0 134

 

বিনোদন ডেস্ক

হংসিকা মোটবানী-  হিন্দি, তামিল ও তেলুগু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। শিশুশিল্পী হিসেবে হিন্দি চলচ্চিত্র হাওয়া তে তার প্রথম আত্মপ্রকাশ। কোই মিল গয়া, আবরা কা ডাবরা এবং জাগো (২০০৪ হিন্দি চলচ্চিত্র) তে তিনি শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেছেন।

হংসিকা দেসামুদুরু তামিল চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয় জীবনে খ্যাতি পান। দেসামুদুরু চলচ্চিত্রে তার অসাধারণ অভিনয়ের জন্যে তিনি ফিল্ম ফেয়ার সেরা অভিনেত্রী (নবাগত) – সাউথ অর্জন করেন।

হংসিকা মোটবানীর বাবা প্রদীপ মোটবানী, পেশায় ব্যবসায়ী এবং মা মোনা মোটবানী পেশায় ত্বক-বিশেষজ্ঞ। তার ভাই প্রশান্ত মোটবানী। তার মাতৃভাষা হল সিন্ধি এবং তিনি একজন বৌদ্ধ ধর্মাবলাম্বী । তিনি তার শিক্ষা জীবন শুরু করেন পদার ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এর মাধ্যমে এবং পরবর্তীতে ইন্টারন্যাশনাল কারিকুলাম স্কুল-এ ভর্তি হন।

তার টেলিভিশন কর্মজীবন শুরু করেন শাকা লাকা বুম বুম নামে একটি সিরিয়াল দিয়ে। পরে তিনি ভারতীয় সিরিয়াল দেস মিন নিকলা হোগা চাঁদে অভিনয় করেছিলেন, যার জন্য তিনি স্টার পরিবার পুরস্কার (প্রিয় শিশু পুরস্কার) পেয়েছিলেন এবং প্রীতি জিনতা এবং ঋত্বিক রোশনের সাথে কোই মিল গায়ায় শিশুদের একজন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। তিনি ১৬ বছর বয়সে পুরী জগন্নাথের তেলুগু চলচ্চিত্র দেশমুদ্দুরে প্রথম নায়িকার ভূমিকা পালন করেন, আল্লু‌ অর্জুনের বিপরীতে ।

২০০৮ সালের প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা বিন্দাস, তার প্রথম এবং একমাত্র কন্ন‌ড় চলচ্চিত্র,যাতে পুন্ন‌িত রাজকুমার অভিনয় করেছিলেন। সেই বছর পরে, তিনি কান্ত্রি চলচ্চিত্রে জুনিয়র এনটিআর এর সাথে অভিনয় করেছিলেন।

২০১১ সালে সফল চলচ্চিত্র ম্যাপিলাইয়ে তার প্রথম তামিল চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে, ধনুষের বিপরীতে। এছাড়াও তার পরবর্তী তামিল ফিল্ম জয়ম রবির বিপরীতে, এনজিউম কধাল, সফল ছিল।

২০১১ সালের ফিল্ম ভ্যালুয়ধাম, যেখানে তিনি বিজয়ের পাশাপাশি অভিনয় করেছিলেন, বক্স অফিসে সাফল্য লাভ করে; এতে প্রথমবারের মতো তিনি গ্রামের মেয়ের ভূমিকা পালন করা করেন।

২০১২ সালে হংসিকার দুটি রিলিজ ছিল, তা মিল ও তেলুগু তে । তার প্রথম মুক্তি ছিল এম. রাজেশের রোমান্টিক কমেডি ওরু কাল ওরু কান্নাডি, যা তার প্রথম রানওয়ে হিট হয়ে ওঠে এবং সমালোচকদের কাছ থেকে তার পারফরম্যান্সের জন্য ইতিবাচক রিভিউ অর্জন করে।

২০১৩ সালে, তিনি চারটি তামিল চলচ্চিত্র এ অভিনয় করেছিলেন, আর্যের বিপরীতে সেটাইই, সুন্দর সির পরিচালনায় থিয়ে ভেলাই সেনিয়ানুম কুমুর এ সিদ্ধার্থের বিপরীতে, হরির সিঙ্গাম ২ তে সুরিয়ার বিপরীতে  ,ভেঙ্কাত প্রভূর বিরিয়ানী্তে সুরিয়া এর ভাই কার্থীর সাথে।

২০১৪ সালে তার পাঁচটি রিলিজ ছিল, তাদের মধ্যে দুটি হল তেলুগু চলচ্চিত্র, কমেডি ফ্ল্যাশ পান্ডাভুলু পান্ডভুলু থমদা এবং অ্যাকশন-মাসালা পাওয়ার।

২০১৫ সালে,লক্ষ্মণের পরিচালনায় তার চলচ্চিত্র রোমিও জুলিয়েট (জয়ম রবি, পুমাম বাজওয়া, ভিটিভি গণেশ, ভামসি কৃষ্ণ, উমা পদ্মনাভন এবং আর্য (অতিথি ভূমিকা) ১২ জুন ২০১৫ তারিখে মুক্তি পায়। এটি মিশ্র পর্যালোচনা পেয়েছিল[উদ্ধৃতি প্রয়োজন] এবং বক্স অফিসে লাভজনক হয়েছিল। তবে এই চলচ্চিত্রে অভিনয় করার জন্য সমালোচকদের কাছ থেকে তিনি প্রশংসা পেয়েছিলেন। পুলি চলচ্চিত্রটি আর্থিকভাবে সফল হয়নি।

২০১৬ সালে, সুন্দর সি পরিচালিত আরমানমানাই ২ মিশ্র রিভিউতে মুক্তি পায়। সেই বছরের তার পরের ছবি রোম্যান্টিক উয়ির উয়ির ও পোক্কিরী রাজা ফ্লপের তালিকায় ছিল। ২০১৬ সালে তার সর্বশেষ মুক্তি ছিল মানিথন, যেখানে তিনি একজন শিক্ষক ছিলেন। দ্বিতীয়বারের মত উধান্যিধী স্ট্যালিনের বিপরীতে তাকে জুটি বানানো হয়েছিল। তিনি সীমিত মেকআপ পরেন এবং তার আগের গ্ল্যাম ভূমিকা থেকে আলাদা প্রিয়ার ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য প্রশংসা জিতেছেন।

২০১৭ সালে তার প্রথম মুক্তি পায় বোগান এবং ইতিবাচক রিভিউ পায়। তৃতীয় বারের মতো জয়ম রবির বিপরীতে তাকে জুটি বানানো হয়েছিল। অনেক সমালোচক ভূমিকা দৃশ্য এবং প্রাক-চূড়ান্ত দৃশ্যের মধ্যে তার কর্মক্ষমতা জন্য প্রশংসা করে। তিনি একটি তেলুগু ফিল্ম লুচকুন্নদু তে অভিনয় করেন।

২০১৭ সালে মালয়ালমে আত্মপ্রকাশ হয় ভিলেনের (মহল্লাল, বিশাল ও রাশি খান্না ) মাধ্যম এ। যা মিশ্র পর্যালোচনা পায় বক্স অফিস এ, কিন্তু তার কর্মক্ষমতা প্রশংসিত হয়। গৌতম নন্দ তে তার ছোট ভূমিকা ছিল ও বক্স অফিস এ মিশ্র রিভিউ পায়।

২০১৮ সালের তার প্রথম মুক্তিটি ছিল দেবদেবীর বিপরীতে গুলেবাভালি, যেখানে তিনি বিজয়ী নামে এক শিল্পীর অভিনয় করেছিলেন। চলচ্চিত্রটি মিশ্র রিভিউতে মুক্তি পায়, কিন্তু এটি বক্স অফিসে ভাল করেছিল এবং তার ভূমিকার প্রশংসা হয়।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.