The news is by your side.

মাস্টারকার্ড চমক আনছে নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য

0 188

 

 

মাস্টারকার্ড-বিশ্বব্যাপী  আধুনিক প্রযুক্তিভিত্তিক ক্যাশলেস লেনদেন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। ২১০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলজুড়ে সেবা দেওয়ার মাধ্যমে মাস্টারকার্ড একটি টেকসই বিশ্ব তৈরির প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, যা সবার জন্য খুলবে সম্ভাবনার নতুন দুয়ার।

মাস্টারকার্ড ১৯৯৭ সালের ১ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু করে। শুরুতে এএনজেড গ্রিন্ডলেজ ব্যাংকের মাধ্যমে কার্ড সেবা চালু করা হয়। বর্তমানে ২০টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান মাস্টারকার্ড ব্র্যান্ডের কার্ড ইস্যু করছে।

মাস্টারকার্ড বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল জাগো নিউজকে বলেন, বাংলাদেশে আমাদের অফিসের প্রায় ৯ বছর হয়েছে। আমরা একমাত্র নেটওয়ার্ক যারা ৯ বছর ধরে বাংলাদেশে লোকাল অফিস দিয়ে কাজ করছি। আমরা কিন্তু রেগুলার ব্যবসা, ডেভিড, ক্রেডিট ও প্রিপেইড কার্ডের ক্ষেত্রে প্রচুর উদ্ভাবন করেছি। বাংলা কিউআর যেটা বাংলাদেশ ব্যাংক দিয়েছে সেটা আমরা বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে কাজ করেছি। আমরা মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস (এমএফএস) ও কার্ড ব্যবসার সঙ্গে একটা সংযুক্তি করেছি ২০১৯ সালে।

ফেসবুক কমার্স করতে গিয়ে তার কিন্তু ফেসবুক অথবা গুগলে বিজ্ঞাপন দিতে হয়। এটা ডুয়েল কারেন্সি কার্ড, সুতরাং এখান থেকে সরাসরি বিজ্ঞাপন দিতে পারবে। তার টাকাটা যেহেতু কার্ডে চলে আসে সুতরাং সে এটিএম মেশিনে গিয়ে টাকা তুলতে পারবে। এটিএম মেশিনগুলো হয়তো সারাদেশে নেই, কিন্তু জেলা ও থানা লেভেলে কিন্তু এটিএম বুথ পাওয়া যাবে।

নতুন উদ্যোক্তাদের ব্যবসা প্রক্রিয়া সহজ করতে ও ব্যবসার প্রসারে মাস্টারকার্ডের পদক্ষেপগুলো কী- জানতে চাইলে তিনি বলেন, এবছর আমরা যেটি করেছিলাম ফিন্যান্সিয়াল ইনক্লুশনের আন্ডারে আমরা পাঁচ লাখ মানুষকে এনেছিলাম। এখন আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে ২০২৫ সালের মধ্যে প্রায় ২০ লাখ মানুষকে ফিন্যান্সিয়াল ইনক্লুশনের আন্ডারে আনবো।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.