The news is by your side.

বেশির ভাগ মন্ত্রীই জনগণের সঙ্গে তামাশা শুরু করেছে: ফখরুল

0 65

বিশ্বের অন্য দেশের তুলনায় আমরা সুখে আছি, বেহেশতে আছি―পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের এ উক্তি জনগণের সাথে তামাশা বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ শনিবার দুপুরে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি প্রতিক্রিয়া জানান।

তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষ যখন প্রতিমুহূর্তে কষ্ট পাচ্ছে, হিমশিম খাচ্ছে, জীবন দুর্বিষহ হচ্ছে ঠিক এমন সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বেহেশতে যাওয়ার কথা বললেন, যে বেহেশতে আছি। ব্যক্তিগত পর্যায়ে কথা বলার জন্য আমি দুঃখিত।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ বেশির ভাগ মন্ত্রীই এমন হালকা কথা বলছেন। আমাদের দেশি ভাষায় যেটাকে বলে―চিটনাই বেড়ে গেছে। তার কারণ এখানে প্রচুর লুটপাট হচ্ছে। সেই লুটপাটের কারণে তারা জনগণের সঙ্গে পরিহাস, তামাশা শুরু করেছে। ’

জনদুর্ভোগের সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ রকম বক্তব্য দেওয়ার অধিকার নেই মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি এর আগেও এমন সব উক্তি করেছেন যেগুলো দেশের মানুষের জন্য হাস্যকর ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে তার এ রকম পরিহাস করার কোনো অধিকার নেই।

এই মুহূর্তে সরকারে যেখানে কোনো আশার বাণী শোনাচ্ছে না সেখানে বিএনপি কি কোনো আশা বাণী শোনাবে জনগণকে? গণমাধ্যম কর্মীদের প্রশ্নের জবাবে ফখরুল বলেন, আমরা বলছি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মাধ্যমে নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনগণের জবাবদিহিমূলক পার্লামেন্ট নিশ্চিত করবো।

বিএনপি নির্বাচিত হয়ে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় গেলে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের উন্নয়নে যেসব উদ্যোগ নেবে তা তুলে ধরেন বিএনপি মহাসচিব। সেগুলো হলো—বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইনসহ এ সংক্রান্ত সব কালাকানুন বাতিল করা হবে। রেন্টাল/কুইক রেন্টাল কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি নবায়ন বন্ধ/বাতিল করা হবে। স্বচ্ছ প্রতিযোগিতামূলক আন্তর্জাতিক টেন্ডারের মাধ্যমে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ ও অন্যান্য কাজ সম্পাদন করা হবে। চাহিদা অনুযায়ী পাওয়ার প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা  হবে। উৎপাদন ও চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন অতি দ্রুত স্থাপন করা হবে। বাপেক্স ও অন্যান্য সরকারি সংস্থার মাধ্যমে দেশীয় খনিজ ও গ্যাস উত্তোলনের জন্য যথাযথ উদ্যোগ নেওয়া হবে, একইসঙ্গে দেশীয় প্রকৌশলী ও সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষ করে তুলতে উপযুক্ত উদ্যোগ নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, গতকাল সিলেট ওসমানি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভূমি অধিগ্রহণ জটিলতা নিরসন সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের অন্য দেশের তুলনায় আমরা সুখে আছি, বেহেশতে আছি। করোনার পর যুদ্ধে সারা বিশ্বে মন্দাভাব। যুদ্ধের ফলে স্যাংশনের মুখে পড়তে হয়েছে। সাপ্লাই চেইনে ব্যাঘাত হচ্ছে। যার ফলে বিভিন্ন দেশে মন্দা এসেছে। আমরা সেদিক থেকে অত্যন্ত ভালো অবস্থানে আছি। ’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ইসমাইল জবিহউল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.