The news is by your side.

বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতির আগে পাহাড়ে ২৬ হত্যাকাণ্ড

0 26

বান্দরবানের রুমায় ব্যাংক ডাকাতির আগে পাহাড়ি সন্ত্রাসী সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সদস্যরা বিভিন্ন সময়ে ২৬ জনকে হত্যা করেছেন। তাঁদের মধ্যে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর চার সদস্য রয়েছেন। অপহরণ করেছেন ১৫ জনকে। ভুক্তভোগীদের পারিবারিক সূত্রে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী সূত্রগুলো বলছে, পাহাড়ে কেএনএফের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড থেমে নেই। এখনো তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী পাহাড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। গুলি ছুড়ে পাহাড়ি জনজীবনে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। তারা দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করার চেষ্টা করছে।

তারা বিভিন্ন সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অপপ্রচার চালাচ্ছে।

যেভাবে কেএনএফের হত্যাকাণ্ড শুরু

ছোট একটি গ্রাম সাইজামপাড়ায় ২০২২ সালের জুন মাসে হামলার মাধ্যমে পরিচিত হয়ে ওঠে কেএনএফ। সাইজামপাড়ার অবস্থান বিলাইছড়ির বড়থলি ইউনিয়নে। তবে রুমা উপজেলার রনিনপাড়া থেকে যাতায়াত কিছুটা সহজ।

বাংলাদেশ-ভারত-মিজোরাম ত্রিদেশীয় সীমান্তলাগোয়া ধুপানিছড়া। গভীর জঙ্গলাকীর্ণ খাড়া পাহাড় হওয়ায় এখানে নিরাপত্তা রক্ষা বাহিনী, সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর যাতায়াত করা কঠিন। সে কারণে বাংলাদেশি সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো ছাড়াও ভারতের মিজোরাম এবং মিয়ানমারের চিন প্রদেশের বেশ কিছু বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী গ্রুপ এখানে ঘাঁটি গেড়ে বসে আছে। এর ফলে এই এলাকাটিতে জনবসতি গড়ে উঠছে না।

সাইজামপাড়া নামে একটি পাড়া হলেও মাত্র তিনটি ত্রিপুরা পরিবার এই গ্রামে বসবাস করে।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.