The news is by your side.

পাবনা-ঢাকা সরাসরি ট্রেন চালুর ঘোষণা রাষ্ট্রপতির

0 83

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম পাবনা সফরে এসে পাবনা-ঢাকা সরাসরি ট্রেন চালুর ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমি দৃঢ়চিত্তে ঘোষণা দিচ্ছি, সেপ্টেম্বর মাসে পাবনা-ঢাকা সরাসরি রেল যোগাযোগ শুরু হবে।’ একই সঙ্গে তিনি ট্রেনটির নাম কী হবে, তা ঠিক করার জন্য জেলাবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত নাগরিক সংবর্ধনার বক্তব্য শেষে তিনি এ ঘোষণা দেন। এ সময় করতালিতে মুখর হয়ে ওঠে পুরো মাঠ। তবে এর কিছু সময়ের মধ্যে ঝড় শুরু হলে রাষ্ট্রপতি বক্তব্য শেষ করে সংবর্ধনা মঞ্চ ত্যাগ করেন।

দীর্ঘদিন ধরে এই জেলার মানুষ সরাসরি ঢাকা পর্যন্ত ট্রেন চালুর দাবি জানিয়ে আসছিলেন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত সুধীজনদের বক্তব্যেও দাবিটি উঠে আসে। পরে রাষ্ট্রপতির ওই ঘোষণার পর জেলার সর্বস্তরের মানুষ আনন্দ প্রকাশ করেছেন। অনেকেই রাষ্ট্রপতির এ ঘোষণার ভিডিও ফুটেজ ফেসবুকে শেয়ার দিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

পাবনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক এ বি এম ফজলুর রহমান বলেন, নতুন রেলপথ চালু হলেও পাবনার মানুষ তেমন সুবিধা পাচ্ছিলেন না। তাই পাবনা-ঢাকা সরাসরি ট্রেন চালুর দাবি ছিল পাবনাবাসীর। রাষ্ট্রপতির ঘোষণার মধ্য দিয়ে সেই দাবি পূরণ হতে চলেছে। ট্রেনটি চালু হলে জেলার যোগাযোগব্যবস্থা আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে।

জেলা নাগরিক কমিটির সদস্যসচিব আবদুল মতিন খান বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতি পাবনার সন্তান। তাঁর কাছে পাবনাবাসীর প্রত্যাশা থাকবেই। সেই প্রত্যাশার একটি পূরণ হতে যাচ্ছে। এতে আমরা খুশি।’

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল রহিম বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে আমাদের অনেক চাওয়া। শুধু পাবনা-ঢাকা ট্রেন নয়, আমরা ঈশ্বরদী বিমানবন্দর চালু, আরিচা-কাজিরহাট-দৌলতদিয়া ওয়াই টাইপ সেতু, ঈশ্বরদীতে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও মধ্য শহরের ইছামতী নদী খননের দাবি জানাই।’

২০১৮ সালে জেলার ঈশ্বরদী থেকে ঢালারচর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ করা হয়। এরপর ২০১৮ সালের ২৪ জুন এই রুটে পাবনা জেলা সদর থেকে রাজশাহী পর্যন্ত ‘পাবনা এক্সপ্রেস’ নামের একটি ট্রেন চালু হয়। পরে ২০২০ সালে জেলা সদর থেকে বেড়া উপজেলার ঢালারচর পর্যন্ত রেললাইনের কাজ শেষ হলে পাবনা এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢালারচর থেকে ছাড়তে শুরু করে। এ সময় নতুন কোনো ট্রেন বৃদ্ধি না করে ‘পাবনা এক্সপ্রেস’ ট্রেনটির নাম পরিবর্তন করে ‘ঢালারচর এক্সপ্রেস’ করা হয়। বর্তমানে একটি ট্রেনই এই রুটে চলাচল করছে।

 

 

 

 

 

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.