The news is by your side.

দুঃসময়ের কথা কেউ ভুলে যাবেন না: প্রধানমন্ত্রী

২০১৩ সালে তিন হাজার ৬০০ জনকে পেট্রোল বোমা মেরে আহত করেছে বিএনপি-জামায়াত

0 25

২০১৩-১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময়কার অগ্নিদগ্ধ হয়ে আহত-নিহতদের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন,  ‘দেশবাসীকে এটুকুই বলবো ওই দুঃসময়ের কথা যেন কেউ ভুলে না যায়।’

রোববার রাজধানীর জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘অগ্নি সন্ত্রাসের আর্তনাদ : বিএনপি-জামাতের অগ্নি সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের খণ্ডচিত্র’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে ২০১৩-১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে নিহতদের স্বজন এবং আহতদের অনেকে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিকগণও ছিলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা আগুনে পুড়েছে কি অবস্থা তাদের? এক এক জনের জীবনে কত স্বপ্ন ছিল, কত আকাঙ্ক্ষা ছিল, সেই আকাঙ্ক্ষা গুলো একে একে পুড়ে শেষ হয়ে গেছে, একে একে পুড়ে সব ধ্বংস। আমি শুধু দেশবাসীকে এটুকুই বলবো ওই দুঃসময়ের কথা যেন কেউ ভুলে না যায়।’

ভবিষ্যতে কেউ এ ধরনের ঘটনা ঘটালে সহ্য করা হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার খালি একটাই আহ্বান থাকবে দেশবাসীর কাছে কেউ রাজনীতি করতে চায় সুষ্ঠু রাজনীতি করুক আমাদের আপত্তি নাই। কিন্তু আমার এই সাধারণ মানুষের গায়ে কেউ হাত দিলে তাদের রক্ষা নাই। এটা সহ্য করা যায় না, কোন মানুষ সহ্য করতে পারে না।’

এ ধরনের ঘটনা যাতে কেউ ঘটাতে না পারে সে বিষয়ে সবাইকে সর্তক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি দেশবাসী কে বলব এ ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে। এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে আর কেউ যেন ঘটাতে না পারে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা চরম মানবাধিকার লঙ্ঘন। এর বিচার হবেই, বিচারটা বোধহয় আল্লাহর তরফ থেকেই হবে। প্রত্যেক মামলায় বিচার চলছে না কিন্তু যারা এ ধরনের অগ্নি সন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে মামলা আছে, বিচার হচ্ছে অনেকে শাস্তি পাচ্ছে, ভবিষ্যতেও পাবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ২০১৩ সালেই তো প্রায় তিন হাজার ৬০০ জনকে পেট্রোল বোমা মেরে তারা আহত করেছে, ২০১৪-২০১৫ তে করেছে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘এই আন্দোলন কী রকম আন্দোলন সেটা আমি জানি না। মানুষের জন্য আন্দোলন করতে হলে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে মানুষকে নিয়েই তো আন্দোলন করবে। আর তারা আক্রমণ চালিয়েছে হত্যা, পাশবিক অত্যাচার, বাড়ি দখল করে।

অনুষ্ঠানে বিগত সময়ে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময়কার অগ্নিদগ্ধ হয়ে আহত-নিহত এবং আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত যানবাহনসহ বিভিন্ন ঘটনার ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী নিহতদের স্বজন এবং আহতদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। তাদের খোঁজ খবর নেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.