The news is by your side.

ডলার সংকটে বিপদের মুখে জ্বালানি খাত

0 88

ডলার সংকটে বিপদের মুখে পড়েছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি)। তেল সরবরাহকারী বিদেশি প্রতিষ্ঠানের বকেয়া অর্থ পরিশোধ করতে না পারায় চুক্তি অনুযায়ী শিডিউলে থাকা তেল সরবরাহ করতে রাজি হচ্ছে না তারা। এরই মধ্যে তেল সরবরাহের একটি চালান বাতিল করেছে সিঙ্গাপুরের ভিটল এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেড।

চলতি মাসে ৩০ হাজার টন ডিজেল সরবরাহের কথা ছিল তাদের। কিন্তু বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় বিপিসিকে চিঠি দিয়ে তেল সরবরাহের কার্গো বাতিলের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে তারা। আগামী জুনে তিনটি কার্গো চালানে ৯০ হাজার টন ডিজেল ও আরেকটি কার্গো চালানে ২৫ হাজার টন ফার্নেস অয়েল সরবরাহের কথা রয়েছে। বকেয়া না পেলে সেই চারটি চালানও সরবরাহ দেবে না বলে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে ভিটল। বিপিসির কাছে তাদের বকেয়া পাওনা ১০০ দশমিক শূন্য ৪ মিলিয়ন ডলার। প্রতি ডলার ১০৬ টাকা হিসাবে বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ১০৬০ কোটি ৪২ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

শুধু ভিটলই নয়, বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় জ্বালানি তেল সরবরাহ করবে না বলে চিঠি দিয়েছে ইন্দোনেশিয়ার বুমি সিয়াক জাপিন (বিএসপি) ও ভারতে ইন্ডিয়ান অয়েল করপোরেশনসহ (আইসিএল) অন্যান্য তেল সরবরাহকারী কোম্পানি। পরিশোধিত তেল সরবরাহ করে থাকে এসব কোম্পানি। এমন পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় তেল সরবরাহকারী কোম্পানি পেট্রোচায়না সিঙ্গাপুর প্রাইভেট লিমিটেডের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিপিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকতারা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তেল সরবরাহকারী কোম্পানিগুলোকে বকেয়া পরিশোধ করে তেলের নির্বিঘ্ন সরবরাহ নিশ্চিত করা না গেলে দেশে নাজুক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। বিপিসির কাছে তেল সরবরাহকারী সাত কোম্পানির পাওনা ১৫৩ দশমিক শূন্য ৪ মিলিয়ন ডলার। প্রতি ডলার ১০৬ টাকা হিসাবে এর পরিমাণ প্রায় ৩ হাজার ৭৪২ কোটি ২২ লাখ ৪০ হাজার টাকা! প্রতি মাসে ১৭ থেকে ১৮টি চালানে পাঁচ লাখ টন পরিশোধিত ও এক লাখ অপরিশোধিত তেল আমদানি করে বিপিসি।

অর্থনীতিবিদ ড. মইনুল হোসেন বলেন, ‘যত সমস্যার মূল হচ্ছে ডলার সংকট। পর্যাপ্ত ডলারের অভাবে তেল আমদানির বিপরীতে সরবরাহকারীদের বকেয়া পরিশোধ করা যাচ্ছে না। আমাদের মুদ্রার মানের পতন ঠেকাতে না পারলে সংকট আরও খারাপের দিকে যাবে। হুন্ডির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা পাচার হয়ে যাচ্ছে। এটা বন্ধ করতে না পারলে বিদ্যমান ডলার সংকটের কোনো সমাধানও হবে না। আর ডলার সংকটে জ্বালানি তেল আমদানি ব্যাহত হলে তাতে জ্বালানি খাতে বড় ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করবে।’

বিপিসির পরিচালক (অর্থ) মোজাম্মেল হক বলেন, বিষয়টি অপারেশন বিভাগই বলতে পারবে। পরিচালক (অপারেশন) খালিদ আহমদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও সাড়া পাওয়া যায়নি। তবে নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে বিপিসির সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘২০২২ সালের জুন পর্যন্ত বিপিসি আমদানি করা জ্বালানি তেলের দাম নিয়মিত পরিশোধ করেছে। এর আগে তেমন কোনো খেলাপি হয়নি। তবে ভিটলসহ আরও দু-একটি কোম্পানির বকেয়া রয়েছে। তারা তেল দিতে চাইছে না। তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতার চেষ্টা করা হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে পেট্রোচায়নার সঙ্গে বৈঠক করা হয়েছে।’

বিপিসির কাছে জনতা ব্যাংকের পাওনা ১৩২ দশমিক ৫৪ মিলিয়ন ডলার; টাকায় যার পরিমাণ ১৪৪ কোটি ৯২ লাখ ৪০ হাজার। অগ্রণী ব্যাংকের পাওনা ২৭ দশমিক ১১১ মিলিয়ন ডলার; টাকায় যার পরিমাণ ২৮৭ কোটি ৩৬ লাখ ৬০ হাজার। সোনালী ব্যাংকের পাওনা ১৩৮ দশমিক শূন্য ৪ মিলিয়ন ডলার; টাকায় যার পরিমাণ ১৪৭০ কোটি ১১ লাখ ৪০ হাজার। রূপালী ব্যাংকের পাওনা ৫৪ দশমিক শূন্য ৪ মিলিয়ন ডলার; টাকায় যার পরিমাণ ৫৭৯ কোটি ৮২ লাখ ২০ হাজার টাকা।

 

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.