The news is by your side.

গুহামানবদের যৌনজীবন:  যৌনসঙ্গী খুঁজতে গুহার বাইরে যেতেন মহিলারা

ঘনিষ্ঠদের সঙ্গেই যৌনসঙ্গমে লিপ্ত হতেন প্রাচীন পুরুষেরা

0 169

 

নিয়ান্ডারথালদের যৌনজীবন নিয়ে নতুন দাবি করলেন গবেষকেরা। তাঁদের দাবি, গুহার ভিতরে থেকে নিজেদের ঘনিষ্ঠদের সঙ্গেই বার বার যৌনসঙ্গমে লিপ্ত হতেন সে সময়ের প্রাচীন পুরুষেরা।

তবে যৌনসঙ্গীর খোঁজে গুহার নিরাপত্তা ছেড়ে বাইরে বেরোতেন মহিলারা। বাইরের জগৎ থেকে অন্য নিয়ান্ডারথালদের মধ্যে থেকে যৌনসঙ্গী বেছে নিতেন তাঁরা।

১৯ অক্টোবর ‘নেচার’ পত্রিকায় এই আন্তর্জাতিক গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে। তাতে নিয়ান্ডারথালদের যৌনজীবন নিয়ে নতুন তথ্য দিয়েছেন গবেষকরা।

গবেষণাপত্র অনুযায়ী, রাশিয়ার দক্ষিণ সাইবেরিয়া অঞ্চল থেকে উদ্ধার ১৩টি নিয়ান্ডারথালের ডিএনএ সিকোয়েন্স করে নানা নতুন তথ্য পাওয়া গিয়েছে। ওই যুগের গুহামানবদের যৌনজীবন ছাড়াও তাঁদের সামাজিক জীবন নিয়েও নতুন ধারণার জন্ম দিয়েছেন গবেষকরা।

প্রসঙ্গত, ঠিক কত বছর আগে নিয়ান্ডারথালরা পৃথিবীর বুকে দাপিয়ে বেড়িয়েছেন, তা নিয়ে আজও ধোঁয়াশা রয়েছে। যদিও সবচেয়ে পুরনো যে নিয়ান্ডারথালের সময়কার অনুরূপ দেহাবশেষ উদ্ধার হয়েছে, তা খ্রিস্টপূর্ব ৪ লক্ষ ৩০ হাজার বছর আগেকার। তা সত্ত্বেও যুগবিভাগ নিয়ে স্পষ্ট ধারণা করা যায়নি।

অসংখ্য মানবজীবাশ্ম থেকে নিয়ান্ডারথালদের অস্তিত্ব সম্পর্কে জানা গিয়েছে। সেগুলির অনেকগুলি খ্রিস্টপূর্ব ১ লক্ষ ৩০ হাজার বছর আগেকার। অনেকের দাবি, খ্রিস্টপূর্ব ১ লক্ষ ৩০ হাজার থেকে ৪০ হাজার বছরের মধ্যে নিয়ান্ডারথালদের অস্তিত্ব ছিল। তার পরের সময় থেকে তাঁদের অস্তিত্ব সংক্রান্ত কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় না বলে দাবি।

নতুন গবেষণাপত্রে দাবি, নিজেদের গুহার কাছাকাছি থাকলেও আত্মীয়দের সঙ্গে যৌনসঙ্গমে লিপ্ত হওয়ার প্রবণতা ছিল না নিয়ান্ডারথালদের উপপ্রজাতির। এমনকি, ডেনিসোভানস নামে এক উপপ্রজাতির সদস্যরা কয়েকশো কিলোমিটার দূরে বসবাস করলেও তাঁদের মধ্যে যৌনসঙ্গী খুঁজতেন না।

যদিও নিয়ান্ডারথালদের উপপ্রজাতি যে এককালে হোমোসেপিয়েনস-এর সঙ্গে যৌনতায় মেতেছিলেন, সে দাবিও করেছেন ওই গবেষণাপত্রটি।

আধুনিক যুগের প্রায় সমস্ত মানবদেহের জীবাশ্মে নিয়ান্ডারথালদের কিছু ডিএনএ পাওয়া গিয়েছে।

ওই উপপ্রজাতির ক্রোমোজ়োমগুলি বিশ্লেষণ করেছেন গবেষকরা। তাতে দেখা গিয়েছে, উত্তরাধিকার সূত্রে বাবার থেকে যে ওয়াই ক্রোমোজ়োম পাওয়া গিয়েছে, তা যথেষ্ট বৈচিত্রপূর্ণ।

গবেষকদের দাবি, অন্য গোষ্ঠীর নিয়ান্ডারথালদের মধ্যে যৌনসঙ্গী খুঁজতে মহিলারা গুহার ঘন ঘন বেরিয়েছেন। তবে যৌনচাহিদা মেটাতে পুরুষেরা নিজেদের আশ্রয়স্থল অর্থাৎ গুহা ছেড়ে নড়েননি।

স্বাভাবিক ভাবেই এই গবেষণাপত্রটি নিয়ে বৈজ্ঞানিকদের মধ্যে আলোচনাও শুরু হয়েছে। ফ্রান্সের ‘ন্যাচারাল মিউজ়িয়াম অফ হিস্ট্রি’-র জীবাশ্মবিদ আতোয়াঁ বালজ়ো সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘‘গবেষণাটি যে খুবই আকর্ষণীয়, তাতে সন্দেহ নেই।’’ যদিও তাঁর মতে, অন্যান্য গবেষণার সঙ্গে এর তুলনা টেনে তার পর নিয়ান্ডারথালদের নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত করা উচিত।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.