The news is by your side.

মহেশ কি রিয়ার গডফাদার?

0 66

 

রিয়া চক্রবর্তী। বাইকুল্লা জেলের একটি সলিটারি সেল-ই আপাতত ঠিকানা তাঁর। বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুর পর বার বার যাঁর দিকে অভিযোগের আঙুল তোলা হয়েছে। শুধু সুশান্ত নন, বলিউডের একাধিক নামী ব্যক্তির সঙ্গে রিয়ার পরিচয় ছিল কর্মসূত্রেই।

জিজ্ঞাসাবাদের সময়ে রিয়া এনসিবি-র গোয়েন্দাদের জানান যে, সুশান্তের লোনাভালার ফার্মহাউসে নিয়মিত মাদকের আসর বসত এবং বলিউডের অনেক তারকা সেখানে আসতেন। সেই সূত্রেই জানা গিয়েছে, সুশান্ত ছাড়াও আরও এক বলি নায়কের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল রিয়ার।

রিয়া এবং মহেশ ভট্টের সম্পর্কটা ঠিক কী রকম? মহেশ কি রিয়ার গডফাদার? তাঁরা কি ভাল বন্ধু? নাকি নেহাতই সন্তানস্নেহে রিয়াকে দেখেন মহেশ? এমন প্রশ্ন আগে উঠলেও এই অভিনেতার কথা কিন্তু খুব একটা শোনা যায়নি।

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুর সূত্র ধরে রিয়ার কললিস্ট চেক করতে গিয়ে এই তারকার নাম উঠে এসেছে।

তাঁর সঙ্গে গত এক বছরে ২৩ বার কথা হয়েছিল রিয়ার। রিয়ার প্রাক্তন প্রেমিকও নাকি তিনি।

মহেশ ভট্ট ক্যাম্পের সঙ্গে এই অভিনেতার ভাল সম্পর্ক। সম্প্রতি ‘সড়ক ২’ ছবিতে তাঁকে দেখাও গিয়েছে। ‘আশিকি-২’-এর নায়কও তিনি। এ বার নিশ্চয় বুঝতে পারছেন তিনি কে।

রিয়ার সঙ্গে তাঁর আলাপও কর্মসূত্রেই ২০১২ সাল নাগাদ। কারণ দু’জনেই ছিলেন ভিডিয়ো জকি। ইনি আদিত্য রয় কপূর।

আদিত্যর সঙ্গে ২০১৪ সাল নাগার রিয়ার নাম জড়িয়েছিল, তাঁদের নানা অনুষ্ঠানে এক সঙ্গে দেখাও গিয়েছে। পাপারাজ্জি দেখলেই নাকি তাঁরা এড়িয়ে চলতেন। এ নিয়ে বলিউডের বেশ কয়েকটি পত্রিকা ও সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে খবরও প্রকাশিত হয়েছিল।

রিয়াকে এই নিয়ে প্রশ্ন করা হলে যদিও তিনি বার বার বলতেন, আদিত্য শুধুই তাঁর ভাল বন্ধু।

এর পরে একটা ইভেন্টে পরস্পরের হাত ধরে দু’জনে ধরাও পড়েছিলেন পাপারাজ্জিদের ক্যামেরায়।

রিয়া এর পরেও বলেছেন, আদিত্যর সঙ্গে তিনি মোটেও ডেট করেননি। আদিত্য ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন, থাকবেনও।

এর পর ২০১৪ সালে মুক্তি পায় ‘সোনালি কেবল’। শোনা যায়, সেই সময় আরও ঘনিষ্ঠতা বেড়েছিল দু’জনের। ‘আশিকি-২’ ছবির সময় আদিত্যর সঙ্গে নাম জড়ায় শ্রদ্ধা কপূরের।

প্রাথমিক ভাবে ‘সোনালি কেবল’ করার আগে রিয়ার শর্ত ছিল, তিনি কোনও লিপ লক দৃশ্যে অভিনয় করবেন না। কিন্তু শ্রদ্ধার নাম জড়াতেই আদিত্যর উপর নাকি স্রেফ ‘প্রতিশোধ’ নিতে চুম্বনদৃশ্যে অভিনয় করেন তিনি।

শোনা যায় এর পর এক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আদিত্যকে পুরস্কার দেওয়ার জন্যও মঞ্চে উঠতে চাননি রিয়া।

তবে প্রকাশ্যে রিয়ার বক্তব্য ছিল, যখন তাঁদের ব্যস্ততা কম ছিল, দুই বন্ধু এক সঙ্গে মলে ঘুরতে গিয়েছিলেন। সিনেমা দেখেছেন।

রিয়ার দাবি, এক সঙ্গে শপিংও করেছেন দুই বন্ধু। কিন্তু প্রেমের সম্পর্ক কখনওই ছিল না।

আদিত্যর সঙ্গে একটা রোম্যান্টিক ছবিতে অভিনয় করে এ জাতীয় গুজবের জবাব দেবেন রিয়া, এমন কথাও বলেছিলেন ‘জালেবি’ অভিনেত্রী।

বন্ধু হিসেবে আদিত্যকে পছন্দ করেন, তাই তাঁদের দু’জনের নামে কেউ রটনা করলে তাঁদের কিছু যায় আসে না, এ কথাও উল্লেখ করেন রিয়া একটি সাক্ষাৎকারে।

তবে সুশান্ত রহস্যমত্যু ও মাদক কাণ্ডে বার বার অভিযোগের আঙুল ওঠার পরে যখন বলিউডের বেশ কয়েক জন যখন রিয়ার পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, তখন আশ্চর্যজনক ভাবে চুপ ‘বন্ধু’ আদিত্য।

Leave A Reply

Your email address will not be published.