The news is by your side.

১৫ শতাংশ জনসমর্থন নিয়ে মেয়রের চেয়ারে বসতে যাচ্ছেন আতিকুল,তাপস

0 93

 

 

 

আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মোট ভোটারের মাত্র ১৪ দশমিক ৮৪ শতাংশের সমর্থন নিয়ে মেয়রের চেয়ারে বসতে যাচ্ছেন। অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণে মোট ভোটারের ১৭ দশমিক ৩০ শতাংশের সমর্থন নিয়ে মেয়রের দায়িত্ব নিচ্ছেন আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস।

ভোট পড়ার হার উত্তরে ২৫ দশমিক ৩০ শতাংশ এবং দক্ষিণে ২৯ শতাংশ। অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এবার কমসংখ্যক ভোটারের সমর্থন নিয়ে মেয়রের দায়িত্ব নিতে হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের দুই প্রার্থীকে।

বিশ্লেষকেরা ভোটের প্রতি আগ্রহ কমে যাওয়ার কয়েকটি কারণের কথা বলছেন। যেমন মানুষ এখন গণতান্ত্রিক চর্চার বিষয়ে কিছুটা উদাসীন বা প্রত্যাশাহীন হয়ে পড়েছেন। ভোটের ফল নিয়ে সাধারণ মানুষের খুব বেশি মাথাব্যথা নেই। কারণ, এখানে তাঁদের পাওয়ারও কিছু নেই। তা ছাড়া মানুষ হয়তো কোনো ঝামেলায়ও জড়াতে চান না। ব্যক্তিগত নিরাপত্তাই এখন মানুষের কাছে প্রধান। এটাকেই বড় করে দেখছেন তাঁরা। বলা যায়, আস্থা বা নিরাপত্তাহীনতার কারণেই মানুষ গণতন্ত্রবিমুখ হয়ে পড়ছেন।

ঢাকা উত্তরে মোট ভোটার ৩০ লাখ ১২ হাজার ৫০৯ জন। ভোট দিয়েছেন ৭ লাখ ৬২ হাজার ১৮৮ জন। প্রায় ৭৫ শতাংশ মানুষ ভোটকেন্দ্রে যাননি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোট পেয়েছেন। অর্থাৎ তিনি মোট ভোটারের ১৪ দশমিক ৮৪ শতাংশের সমর্থন পেয়ে মেয়র হয়েছেন। অবশ্য তিনি প্রদত্ত ভোটের ৫৮ দশমিক ৬৭ শতাংশ পেয়েছেন।

গত বছরের মার্চে ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে উপনির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ ছিল না। কিন্তু সে নির্বাচনেও ৩১ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পড়েছিল। আর এর আগে ২০১৫ সালে উত্তরের মেয়র নির্বাচনে ভোটের হার ছিল ৩৭ দশমিক ৩ শতাংশ। বিএনপি মাঝপথে সে নির্বাচন বর্জন করেছিল।

এবার ঢাকা দক্ষিণে মোট ভোটার ২৪ লাখ ৫৩ হাজার ১৫৯ জন। ভোট পড়েছে ৭ লাখ ১৩ হাজার ৫০টি। ৭১ শতাংশ মানুষ ভোটকেন্দ্রে যাননি। ৪ লাখ ২৪ হাজার ৫৯৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি নির্বাচনী এলাকার মোট ভোটারের মাত্র ১৭ দশমিক ৩০ শতাংশের সমর্থন পেয়েছেন। তবে তিনি প্রদত্ত ভোটের ৫৯ দশমিক ৫৪ শতাংশ পেয়েছেন।

২০১৫ সালে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ভোট পড়ার হার ছিল ৪৮ শতাংশ।

 

সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ না করা, বিরোধী দলের সহিংসতা এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা বিজয়ী হওয়ায় নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের অনীহার সূচনা ঘটে। এরপর ২০১৪ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ত্রুটিপূর্ণ ব্যবস্থাপনা, অনিয়ম এবং ভোট কারচুপির ব্যাপক ও দৃশ্যমান অভিযোগ এবং এসব অভিযোগের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের নিষ্ক্রিয়তা ভোটারদের মধ্যে চূড়ান্ত হতাশা তৈরি করে।

সাম্প্রতিক একটি জরিপের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ওই জরিপ অনুযায়ী প্রায় ৮৫ শতাংশ মানুষ আওয়ামী লীগকে সমর্থন করেছে। তাহলে আওয়ামী লীগের ভোটাররাও কি ভোট দিতে যাননি? তাঁরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন নাকি তাঁরা ধরে নিয়েছেন, তাঁদের দল জয়ী হবে, এ কারণে ভোট দিতে হবে না।

গত জাতীয় নির্বাচনের আগে ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোতেও ভোটের হার অনেক বেশি ছিল। রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৭৮ শতাংশ, সিলেটে ৭৫ শতাংশ, বরিশাল ও খুলনায় ৬২ শতাংশ এবং গাজীপুরে ৫৭ শতাংশ ভোট পড়েছিল।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের সংসদ নির্বাচনে ভোট পড়ার হার ছিল ৮০ শতাংশ।

বাংলাদেশে ভোট মানে উৎসব। দীর্ঘদিনের এই সংস্কৃতি পাল্টে যাচ্ছে। প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন। কোটি কোটি টাকা খরচ করে ভোটের সার্বিক আয়োজন করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কিন্তু সেভাবে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে যাচ্ছেন না। ভোটের প্রতি ভোটারদের অনাগ্রহ বাড়ছে।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি, ৮৭ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট পড়েছিল ২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত নবম সংসদ নির্বাচনে। একতরফাভাবে অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ ও দশম সংসদ নির্বাচন বাদে অন্য সব জাতীয় নির্বাচনে ৫১ শতাংশের বেশি ভোট পড়ে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দীন খান বলেন, ভোটের প্রতি আগ্রহ কমার কারণ মানুষ মনে করছেন, তাঁর ভোট দেওয়া না–দেওয়া সমান। বিগত জাতীয় নির্বাচন দেখে মানুষ প্রচণ্ড হতাশ। তিনি মনে করেন, ৫০ শতাংশ ভোট না পড়লে নতুন করে ভোট করতে হবে, এমন বিধান রেখে আইন সংস্কার করা দরকার। প্রায় দুই কোটি মানুষের ঢাকা শহরের যে দুজন মেয়র নির্বাচিত হলেন, তাঁরা ৭০ শতাংশ মানুষের প্রতিনিধিত্ব করছেন কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে। এটা অত্যন্ত ক্ষতিকর।

 

 

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.