The news is by your side.

সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত কি অনন্তকাল চলবে: হাইকোর্ট

0 282

 

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে উদ্দেশ্য করে হাইকোর্ট বলেছেন, দীর্ঘ সাত বছরে মামলার তদন্ত শেষ হয়নি। তদন্ত শেষ হবে কবে? তদন্ত কি অনন্তকাল ধরে চলবে?

সোমবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার শফিকুল আলমকে উদ্দেশ্য করে এসব প্রশ্ন করেন বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ।

পরে আদালত এ মামলায় সন্দেহভাজন আসামি তানভীর রহমানের মামলা বাতিলের আবেদনের ওপর আদেশের জন্য আগামি ১৪ নভেম্বর দিন নির্ধারণ করেন।

আদালতে আসামি তানভীরের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী ফাওজিয়া করিম ফিরোজ। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন।

এর আগে, ২০ অক্টোবর তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব করেন হাইকোর্ট। মামলার সিডিসহ তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার শফিকুল আলমকে হাজির হতে বলা হয়।

শুনানিকালে তদন্ত কর্মকর্তা খন্দকার শফিকুল আলম আদালতে বলেন, এ মামলার কোনো ক্লু খুঁজে পাওয়া যায়নি। ডিএনএ টেস্টের জন্য চারটি নমুনা যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়। যার দুটি নমুনা এসেছে। এসব নমুনার সাথে আসামিদের কারো সাথে কোনো মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি। অপর দুটি পরীক্ষা এফবিআইতে পাঠানো হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো অগ্রগতি নেই।

আলামত হিসেবে কী পাওয়া গেছে, আদালতের এমন প্রশ্নের উত্তরে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, “আমরা কয়েকটি ছোরা, দা, বটি পেয়েছি। তবে রিপোর্ট না আসায় কারো সাথে মিল পাওয়া যায়নি।” এসময় আদালত হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, “দীর্ঘ ৮ বছর মামলার তদন্ত শেষ হয়নি। তদন্ত শেষ হবে কবে। তদন্ত কি অনন্তকাল ধরে চলবে?”

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন আদালতকে বলেন, ‘আপনারা (হাইকোর্ট) এ মামলার দ্রুত প্রতিবেদন দিতে একমাস সময় দিয়ে আদেশ দিতে পারেন।’

এ সময় আদালত বলেন, সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে কিছুই হয়নি। এখন সেটির আদেশ দিবো। পরে আদালত এ মামলায় সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে তানভীর রহমানের মামলা বাতিলের আবদেনের ওপর আদেশের জন্য আগামী ১৪ নভেম্বর দিন নির্ধারণ করেন।

সাগর-রুনি হত্যা মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার হওয়া ২৬ মাস জামিনে কারাগার থেকে জামিন পান তানভীর রহমান। তানভীরের বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে। তিনি ঢাকায় উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরে থাকেন। তানভীর রহমান ২০১২ সালের ১ অক্টোবর তাঁর কর্মস্থল স্কলাসটিকা স্কুলের উদ্দেশে বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। এ ঘটনায় উত্তরা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে তার পরিবার।

এরপর ৯ অক্টোবর তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর সংবাদ সম্মেলনে জানান, সাগর-রুনি হত্যা মামলায় তানভীরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরে উচ্চ আদালত থেকে তিনি জামিন পান। পরে ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে তিনি মুক্তি পান।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারোয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। পরের দিন ভোরে তাদের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়।

ওই ঘটনায় রুনির ভাই বাদী হয়ে আদালতে একটি মামলা করেন। প্রথমে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন শেরেবাংলা নগর থানার এক উপপরিদর্শক (এসআই)। পরে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। দুই মাসেরও বেশি সময় তদন্ত করে ডিবি রহস্য উদঘাটনে ব্যর্থ হয়। পরে হাইকোর্টের নির্দেশে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল হত্যা মামলাটির তদন্তভার র‌্যাবের কাছে হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু গত সাত বছরেও মামলার তদন্তে অগ্রগতির কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি।

এ মামলায় রুনির বন্ধু তানভীর রহমানসহ মোট আসামি আট জন। অন্য আসামিরা হলো—বাড়ির নিরাপত্তারক্ষী এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির, রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মাসুম মিন্টু, কামরুল হাসান অরুণ, পলাশ রুদ্র পাল ও আবু সাঈদ। আসামিদের প্রত্যেককে একাধিকবার রিমান্ডে নেওয়া হলেও তাদের কেউ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়নি।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.