The news is by your side.

শেখ হাসিনা: আলো হাতে আঁধারের যাত্রী

শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ

0 131

 

 

সুজন হালদার

দেশে গণতান্ত্রিক উত্তরণের ঐতিহাসিক কালপর্ব সূচিত হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে। পরবর্তী সময়ে যা বিকশিত হয়, তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। অবশ্য দীর্ঘ এ গণতান্ত্রিক অভিযাত্রায় বারবার বাধা আসে । কখনো থমকে দাঁড়ায় গণতন্ত্র।

২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াতের দূঃশাসন পরবর্তী অস্থির সময়ে বিরাজনীতিকরণ নীতির হাতে নেয় সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার।

১৫ মার্চ ২০০৭। শেখ হাসিনা অসুস্থ পুত্রবধূকে দেখতেযুক্তরাষ্ট্র যান। তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনার বিদেশে থাকার সুযোগ কাজে লাগাতে মরিয়া হয়ে ওঠে। একজন ব্যবসায়ীকে ধরে এনে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করে। অপরদিকে শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরে আসবার ব্যাপারে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।

পিতার আদর্শে প্রাণিত শেখ হাসিনা আপন নীতিতে অটল থাকেন ।জীবনকে মৃত্যুর কাছে জিম্মি রেখে সব রকম প্রচেষ্টা চালান দেশে ফিরে আসবার। ৭ মে শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসেন।

১৬ জুলাই তাকে গ্রেপ্তার করা হয় । রাখা হয় জাতীয় সংসদ ভবনে অবস্থিত বিশেষ কারাগারে । শেখ হাসিনার মুক্তির দাবিতে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশের সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ মুখর হয়ে ওঠে ।

শাহে আলম মুরাদ এর নেতৃত্বে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ তার মুক্তির দাবিতে ২৫ লক্ষ গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করে । বাড়তে থাকে আন্তর্জাতিক চাপ।

প্রবল গণদাবি বিক্ষোভ আর আন্তর্জাতিক চাপের মুখে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ২০০৮ সালের এই দিনে শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।

শেখ হাসিনা মুক্ত হন। মুক্তি পায় দেশের অবরুদ্ধ গণতন্ত্র ।মানুষ মন খুলে কথা বলবার ভাষা খুজে পায়। সাহস পায় নতুন দিনের স্বপ্ন দেখবার।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর দেশের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করে দেশের বিকাশমান গণতন্ত্র ও উন্নয়ন অভিযাত্রায় সূচিত হয় নতুন অধ্যায় গণতন্ত্র ও উন্নয়নের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় পথ হাঁটে বাংলাদেশ।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.