The news is by your side.

যথাসময়ে বুয়েট ভর্তি পরীক্ষা হবে,আন্দোলন শিথিল

0 13

 

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ১৪ অক্টোবরের ভর্তি পরীক্ষাকে সামনে রেখে ১৩ ও ১৪ অক্টোবর দুই দিন আন্দোলন শিথিলের ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। এর ফলে ১৪ অক্টোবর নির্ধারিত তারিখে বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

আজ শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে বুয়েটের শহীদ মিনারের সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। তাঁরা বলেন, বুয়েট প্রশাসন ইতিমধ্যে আন্দোলনকারীদের ৫ দফা দাবি মেনে নিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। এটা আন্দোলনের প্রাথমিক বিজয়। এ কারণে ১৩ ও ১৪ অক্টোবর চলমান আন্দোলন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাঁরা আশা করেন, এই সময়ের মধ্যে সব দাবি মানার সিদ্ধান্ত দৃশ্যমান করবে বুয়েট প্রশাসন।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা যথা সময়েই অনুষ্ঠিত হবে। আবরার হত্যার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের জন্য যে উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছিল ভর্তি পরীক্ষার কারণে সেই আন্দোলন শিথিল করা হলো।

আন্দোলনকারীরা বলেন, ১৪ অক্টোবর বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা। ভর্তি পরীক্ষা নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠিত হোক, সেটা আমরা চাই। পরীক্ষা বানচালের দায় আমরা নিতে চাই না। এর সঙ্গে তাঁরা যোগ করেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আস্থা আছে। ভিসি স্যারকেও ধন্যবাদ। দাবি বাস্তবায়ন শুরু হওয়ায় আন্দোলন আপাতত শিথিল। পরীক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার অংশ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত।

৫ দফা দাবির বিষয়ে অগ্রগতি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তাঁদের ৫ দফা দাবিগুলো হলো—হত্যাকারীদের বুয়েট থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হবে এ মর্মে নোটিশ দেওয়া, সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধের জন্য অবৈধ ছাত্রদের সিট বাতিল করা, সাংগঠনিক অফিস সিলগালা করা, ফাহাদের মামলার খরচ দেওয়ার নোটিশ দেওয়া ও ভিন্নমত দমানোর নামে নির্যাতন বন্ধে প্রশাসনের সক্রিয় ভূমিকা নিশ্চিত করা এবং এ ধরনের ঘটনা প্রকাশে একটি কমন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে সব হলের সিসিটিভির ফুটেজে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা।

শিক্ষার্থীরা জানান, তাদের মূল দাবি ১০টি। মূলত ভর্তি পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে তারা ৫টি দাবি পূরণের কথা বলেছিলেন। যেহেতু প্রশাসন দাবিগুলো পূরণে কাজ শুরু করেছে তাই তারা প্রশাসনের উপর আস্থা রেখেছেন। তারা জানান, দাবি অনুযায়ী ইতোমধ্যে কয়েকটি হলে সিসিটিভি লাগানোর কাজ শুরু হয়েছে।

এর আগে সকালে সহপাঠী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর আন্দোলনে ফুঁসে ওঠা শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট)।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. সাইদুর রহমান সাক্ষারিত দাবি মানার পৃথক পৃথক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

তার আগে শুক্রবার বিকেলে বৈঠকে উপাচার্য সাইফুল ইসলাম অধিকাংশ দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিলেও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন শিক্ষার্থীরা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.