মালদ্বীপে সংকট সমাধানে হস্তক্ষেপের আহ্বান  নাশিদের Reviewed by Momizat on . মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ বলেছেন, দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের কর্মকাণ্ড সবই অবৈধ। একই সঙ্গে এসব ঘটনায় পদক্ষেপ নিতে এবং তাঁকে মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ বলেছেন, দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের কর্মকাণ্ড সবই অবৈধ। একই সঙ্গে এসব ঘটনায় পদক্ষেপ নিতে এবং তাঁকে Rating: 0
You Are Here: Home » slider » মালদ্বীপে সংকট সমাধানে হস্তক্ষেপের আহ্বান  নাশিদের

মালদ্বীপে সংকট সমাধানে হস্তক্ষেপের আহ্বান  নাশিদের

Mohamed_Nasheed

মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ বলেছেন, দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনের কর্মকাণ্ড সবই অবৈধ। একই সঙ্গে এসব ঘটনায় পদক্ষেপ নিতে এবং তাঁকে পদচ্যুত করতে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মঙ্গলবার মোহাম্মদ নাশিদ এক টুইট বার্তায় এই আহবান জানান।

টুইট বার্তায় তিনি বলেন,  ‘মালদ্বীপের জনগণের পক্ষ থেকে আমরা আটক প্রধান বিচারপতি ও সাবেক প্রেসিডেন্ট মামুন আবদুল গাইয়ুমকে মুক্ত করতে ভারতের কাছে সামরিকবাহিনীসহ প্রতিনিধি পাঠানোর বিনীত অনুরোধ করছি। আমরা ভারতের সরাসরি হস্তক্ষেপ চাইছি।’

nashid

 

প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন আবদুল গাইয়ুম সোমবার জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার পর পুলিশ ও সৈন্যরা মধ্যরাতে প্রেসিডেন্টের জ্যেষ্ঠ সৎ ভাই সাবেক প্রেসিডেন্ট মামুন আবদুল গাইয়ুমকে গ্রেফতার করে।

এছাড়া সুপ্রিম কোর্টের দুই বিচারপতিকেও মঙ্গলবার ভোরে সুপ্রিম কোর্টের ভেতরে হানা দিয়ে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। গ্রেফতার হওয়ার ভয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারকরা তাদের বাসভবন ছেড়ে সুপ্রিম কোর্টভবনে আশ্রয় নিয়েছিলেন।

সকল বিরোধী রাজনৈতিক নেতাকর্মীর নামে করা মামলা ও আটকাদেশকে অবৈধ ঘোষণা করে তাদের মুক্তি ও অব্যাহতি দান এবং প্রেসিডেন্টকে গ্রেফতার করার জন্য বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের চারজন বিচারপতির যে বেঞ্চ আদেশ দিয়েছিল, গ্রেফতারকৃত দুই বিচারপতিও সেই বেঞ্চে ছিলেন।

এরা হচ্ছেন বিচারপতি আবদুল্লাহ সাঈদ ও আলী হামিদ। এছাড়া বিচার বিভাগীয় এক কর্মকর্তাকেও এসময় গ্রেফতার করা হয়। কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়াই তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

রয়টার্স ও এএফপির খবরে জানানো হয়, গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত মালদ্বীপের প্রথম প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদকে ২০১৫ সালে দেশটির একটি আদালত ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন। ২০১২ সালে তখনকার ফৌজদারি আদালতের প্রধান বিচারক আবদুল্লাহ মোহাম্মদকে ক্ষমতার অপব্যবহার করে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেওয়ার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন নাশিদ।

কারাদণ্ড মাথায় নিয়ে ২০১৬ সালে চিকিৎসার জন্য তিনি যুক্তরাজ্যে যাওয়ার অনুমতি পেয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে নাশিদ যুক্তরাজ্যে রাজনৈতিক আশ্রয় নেন। বর্তমানে তিনি শ্রীলঙ্কায় আছেন।

২০১২ সালে দেশটির প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেতা নাশিদকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর থেকে মালদ্বীপে রাজনৈতিক উত্তেজনা শুরু হয়। ২০১৩ সালের নির্বাচনে নাশিদকে হারিয়ে ক্ষমতায় বসেন আবদুল্লাহ ইয়ামিন।

নাশিদ বারবার ইয়ামিনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে আসছেন। একই সঙ্গে নির্বাসন থেকে ফিরে এ বছরের শেষ দিকে হতে যাওয়া প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চেয়েছেন।

গত সপ্তাহে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট সন্ত্রাসবাদে জড়িত বলে অভিযোগে কারাবন্দী বিরোধীদলীয় নয়জন নেতাকে মুক্তির আদেশ দেন। তাঁদের মধ্যে বিদেশে স্বেচ্ছানির্বাসনে থাকা দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদও রয়েছেন। কিন্তু ইয়ামিন আদালতের আদেশ না মেনে উল্টো জরুরি অবস্থা জারি করেছে। একই সঙ্গে প্রধান বিচারপতিসহ দুই বিচারপতি এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট মামুন আবদুল গাইয়ুমকে গৃহবন্দী অবস্থা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

About The Author

admin

সংবাদের ব্যাপারে আমরা সত্য ও বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাস করি।বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের সুমহান চেতনায়। আমাদের প্রত্যাশা একাত্তরের চেতনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক সুখী সমৃদ্ধশালী উন্নত দেশের পর্যায়ে।

Number of Entries : 7611

Leave a Comment

সম্পাদক : সুজন হালদার, প্রকাশক শিহাব বাহাদুর কতৃক ৭৪ কনকর্ড এম্পোরিয়াম শপিং কমপ্লেক্স, ২৫৩-২৫৪ এলিফ্যান্ট রোড, কাঁটাবন, ঢাকা থেকে প্রকাশিত। ফোনঃ 02-9669617 e-mail: info@visionnews24.com
Design & Developed by Dhaka CenterNIC IT Limited
Scroll to top