The news is by your side.

বড় ব্যবধানেই জয়ী কনজারভেটিভ পার্টি

0 173

 

ব্রেক্সিটকে ঘিরে পাঁচ বছরের মধ্যে তৃতীয় দফায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া জাতীয় নির্বাচনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বড় ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন।

সরকার গঠন করার জন্য ৩২৬টি আসনের প্রয়োজন হলেও ক্ষমতাসীন এই দল তার চেয়ে অনেক বেশি আসন পেয়েছে বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

কনজারভেটিভ পার্টি যে লেবার পার্টিকে হারিয়ে আবারও ক্ষমতায় আসছে তা অবশ্য অনেকটাই নিশ্চিতভাবে জানা যাচ্ছিল আগে থেকেই; বুথ ফেরত জরিপেও দলটির বড় জয়ের আভাস পাওয়া যায়।

বিবিসির ভবিষ্যদ্বাণীতে বলা হয়েছিল, বরিস জনসন অন্তত ৭৪টি আসনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ডাউনিং স্ট্রিটে ফিরতে পারবে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, নির্বাচনের ফল ব্রেক্সিটের জন্য নতুন শক্তিশালী ম্যান্ডেট।

পশ্চিম লন্ডনের অক্সব্রিজ আসনে জয়লাভের পর জনসন বলেন, এখনকার পর্যায়ে যা দেখা যাচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে, কনজারভেটিভ সরকার কেবল ব্রেক্সিট কার্যকর করাই নয় বরং দেশকে একতাবদ্ধ করা এবং সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যও নতুন করে শক্তিশালী জনাদেশ পেয়েছে।

তিনি জানান, আমি মনে করি এ এক ঐতিহাসিক নিরবাচন হতে চলেছে। যা আমাদেরকে নতুন সরকারে ব্রিটিশ জনগণের গণতান্ত্রিক আকাঙ্ক্ষাকে শ্রদ্ধা দেখানো, পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে দেশকে আরো ভালর দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং দেশের জনগণের জন্য সম্ভাবনার দ্বার খুলে দেওয়ার সুযোগ করে দেবে।

বরিস জনসনের দল কনজারভেটিভ পার্টির জয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই জয়কে তিনি ‘জনসনের বড় জয়’ হিসেবেই দেখছেন।

বৃহস্পতিবার দেশটির সাধারণ নির্বাচনের পর রাত ১০টার দিকে ভোট গণনা শুরু হয়। স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ঘোষিত ৬৪৫টি আসনের মধ্যে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি ৩৬২টি আসনে জয় পেয়েছে আর প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টি পেয়েছে ২০৩টি আসন।

নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টির নেতা বরিস জনসন তার অক্সব্রিজ আসনে জয়লাভ করেছেন। তিনি পেয়েছেন ২৫ হাজার ৩৫১ ভোট এবং লেবার পার্টির প্রার্থী আলী মিলানি পেয়েছেন ১৮ হাজার ভোট। নিজ আসনে জয় পেয়েছেন লেবার পার্টির জেরেমি করবিন।

প্রতি পাঁচ বছর পর সাধারণ নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও ব্রেক্সিট নিয়ে জটিলতার কারণে যুক্তরাজ্যে গত পাঁচ বছরেরও কম সময়ে তিনটি নির্বাচন হলো।

নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টি বড় জয় পেলেও বিরোধী দল লেবার পার্টি থেকে টানা তৃতীয়বারের মতো হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে জয়ী হয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক টিউলিপ রিজওয়ানা সিদ্দিক। জয় পেয়েছেন লেবার পার্টির আরও তিন বাংলাদেশি প্রার্থী আফসানা বেগম, রুশনারা আলী ও রূপা হক।

প্রায় শতবর্ষ পরে এই প্রথম ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হলো ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচন। তীব্র শীতের মধ্যেও বৃহস্পতিবার দেশটির মানুষ ভোট দিয়েছেন। ১৯৭৪ সালের পর এই প্রথম ব্রিটেনে শীতকালে ভোট হলো। সর্বশেষ ডিসেম্বরে ভোট হয়েছিল ১৯২৩ সালে।

ইংল্যান্ড, ওয়েলস, স্কটল্যান্ড এবং নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডজুড়ে থাকা ৬৫০টি পার্লামেন্টারি আসনে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। রাত ১০টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলে।

এবারও ‘ফার্স্ট পাস্ট দ্য পোস্ট’ পদ্ধতিতে ৬৫০ এমপি নির্বাচিত করছেন ব্রিটেনের জনগণ। এই পদ্ধতিতে একটি আসনে যে প্রার্থী সর্বাধিক ভোট অর্জন করেন, তিনিই এমপি নির্বাচিত হন। এভাবে কোনো দল ৩২৬টি আসন পেলেই সরকার গঠন করতে পারবে। ব্রিটেনের মোট নিবন্ধিত ভোটারের সংখ্যা ৪৫ দশমিক ৭ মিলিয়ন। যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ৬৮ শতাংশ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.