প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ১৪ Reviewed by Momizat on . প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। রোববার পুলিশ জানায়, এই চক্রের সদস্যরা ফেসবুক, মেসেঞ্ প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। রোববার পুলিশ জানায়, এই চক্রের সদস্যরা ফেসবুক, মেসেঞ্ Rating: 0
You Are Here: Home » slider » প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ১৪

প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ১৪

question leak

প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

রোববার পুলিশ জানায়, এই চক্রের সদস্যরা ফেসবুক, মেসেঞ্জার, হোয়াটস অ্যাপসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরীক্ষার আগের দিন রাতে ফেক (ভুয়া) আইডি থেকে বিভিন্ন প্রশ্নের সেট বিক্রয় ও সরবরাহ করে থাকে। যা শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে।

দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন ডিবির যুগ্ম কমিশনার মো. আবদুল বাতেন।

আবদুল বাতেন বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন প্রশ্নের সেট ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে শনিবার রাজধানীতে দিনভর অভিযান চালিয়ে ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার হওয়া ১৪ হলেন মো. রাহাত ইসলাম, মো. সালাহউদ্দিন, মো. সুজন, মো. জাহিদ হোসেন, মো. সুফল রায় ওরফে শাওন, মো. আল-আমিন, মো. সাইদুল ইসলাম, মো. আবির ইসলাম নোমান, মো. আমান উল্লাহ, মো. বরকত উল্লাহ, আহসান উল্লাহ, মো. শাহাদাৎ হোসেন ওরফে স্বপন, ফাহিম ইসলাম এবং তাহসিব রহমান।

ডিবি কর্মকর্তা জানান, এঁদের মধ্যে আমান উল্লাহ, আহসান উল্লাহ এবং বরকত উল্লাহ তিন ভাই। সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী  হলেন আহসান। তাঁদের কাছ থেকে একটি ল্যাপটপ, ২৩টি স্মার্টফোন এবং দুই লাখ দুই হাজার ৪০০ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

বাতেন বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া তরুণরা ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার, ইমো এবং হোয়াটস অ্যাপসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের গ্রুপ বা পেজের অ্যাডমিন। তাঁরা তাঁদের ভুয়া নাম অথবা আইডি ব্যবহার করে এসব গ্রুপ বা পেজ পরিচালনা করতেন। এসব অ্যাডমিনদের আবার নিজস্ব একটা গ্রুপ থাকে। তারা মূলত এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছে প্রশ্ন বিক্রির উদ্দেশ্য গ্রুপ মেম্বার সংগ্রহ এবং গ্রুপে এ সংক্রান্তে আকর্ষণীয় পোস্ট দেয়।

ডিবি কর্মকর্তা বলেন, বেশির ভাগ সময় পরীক্ষার দিন সকালে, কখনো কখনো পরীক্ষার আগের দিন রাতে একেক গ্রুপ থেকে একেক ধরনের প্রশ্নের সেট বিক্রয় ও সরবরাহ করতে থাকে, যা ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করে। এর বিনিময়ে তাঁরা বিকাশ ও রকেটের মাধ্যমে ৫০০ থেকে দুই হাজার টাকা করে আদায় করত বলে জানান বাতেন।

 

About The Author

admin

সংবাদের ব্যাপারে আমরা সত্য ও বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাস করি।বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের সুমহান চেতনায়। আমাদের প্রত্যাশা একাত্তরের চেতনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক সুখী সমৃদ্ধশালী উন্নত দেশের পর্যায়ে।

Number of Entries : 7896

Leave a Comment

সম্পাদক : সুজন হালদার, প্রকাশক শিহাব বাহাদুর কতৃক ৭৪ কনকর্ড এম্পোরিয়াম শপিং কমপ্লেক্স, ২৫৩-২৫৪ এলিফ্যান্ট রোড, কাঁটাবন, ঢাকা থেকে প্রকাশিত। ফোনঃ 02-9669617 e-mail: info@visionnews24.com
Design & Developed by Dhaka CenterNIC IT Limited
Scroll to top