The news is by your side.

টেস্ট নাকি টি-টোয়েন্টি: ক্রিকেটের কোন ফরম্যাট জনপ্রিয়?

0 203

মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব বা এমসিসি নামে পরিচিত ক্রিকেটের শীর্ষ একটি প্যানেল ঘোষণা করেছে এখনো টেস্ট ক্রিকেটই জনপ্রিয়তার শীর্ষে আছে

৮৬ শতাংশ ভক্ত টেস্ট ক্রিকেটে দেখা পছন্দ করে বলে জানিয়েছে।

সীমিত ওভারের ক্রিকেটের তুলনায় পাচঁ দিনের ক্রিকেটের প্রতি ক্রিকেট ভক্তদের সমর্থন দেখা গিয়েছে।

মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাবের একটি জরিপে পাওয়া গিয়েছে এই তথ্য।

এই জরিপের নাম এমসিসি টেস্ট ক্রিকেট সার্ভে।

এই গবেষণাধর্মী জরিপের উদ্দেশ্য ছিল টেস্ট ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা ও প্রাসঙ্গিকতা যাচাই করা।

কিভাবে জরিপ চালানো হয়

১০০ দেশের ১৩ হাজার ক্রিকেট ভক্তের ওপর এই জরিপ চালানো হয়।

যেখানে ভক্তরা নিরঙ্কুশভাবে টেস্ট ক্রিকেটের কথা বলেছে।

এমসিসির বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “আমরা দেখতে চেয়েছি বয়স বা দেশের গন্ডি পেড়িয়ে ক্রিকেটের কোন ফরম্যাট বেশি জনপ্রিয় সেখানে টেস্ট ক্রিকেট অনেক এগিয়ে, আমাদের এই জরিপ বলছে টেস্ট ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।”

টেস্ট ক্রিকেটের পরে ভক্তদের পছন্দ ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া টুর্নামেন্টগুলো।

ভক্তদের মতামতের মধ্যে বড় বিষয় ছিল যে তারা টেস্ট ক্রিকেট দেখতেই পছন্দ করে এবং এটাই সেরা ফরম্যাট।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল অবশ্য বলছে যে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটই ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির মূল নিয়ামক।

এর আগে অবশ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল বা আইসিসির একটি জরিপে উঠে এসেছিল ৭০ শতাংশ মানুষ টেস্ট ক্রিকেট পছন্দ করে।

গত বছর ১ বিলিয়ন অর্থাৎ একশত কোটি মানুষের ওপর জরিপ চালিয়ে দেখা যায় যে টেস্ট ক্রিকেটই বেশি জনপ্রিয়।

এমসিসির এই জরিপে ভক্তদের কিছু চাওয়া পাওয়া উঠে এসেছে।

  • টেলিভিশনের সম্প্রচার বিনামূল্যে করা।
  • টিকেটের মূল্য কমিয়ে আরো বেশি টিকেট বিক্রির ব্যবস্থা করা।
  • অর্ধেক দিনের জন্য টিকেট বিক্রি করে আরো বেশি মানুষকে উৎসাহিত করা।

ক্রিকেটাররা কী বলছেন?

শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা এমসিসির বিশ্ব ক্রিকেট কমিটির একজন সদস্য।

সাঙ্গাকারা মোটেও অবাক হননি এই জরিপ দেখে।

ইন্ডিয়া অস্ট্রেলিয়াকে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে হারিয়েছে, শ্রীলঙ্কা দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়েছে শেষ কয়েক মাসে টেস্ট ক্রিকেট সবাই উপভোগ করেছে বলে মনে করেন সাঙ্গাকারা।

সাঙ্গাকারা আরো বলেন, “এটা একটা সুযোগ ও দায়িত্ব, যার ফলে অনেক দৃঢ় একটি ভবিষ্যৎ পেতে যাচ্ছে টেস্ট ক্রিকেট।

ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক মাইক গ্যাটিং এই এমসিসির বিশ্ব ক্রিকেট কমিটির প্রধান।

তিনি মনে করেন টেস্ট ক্রিকেট চিরাচরিত গতির সাথে তাল মিলিয়ে এগোচ্ছে, দিবারাত্রির টেস্টের চাহিদা রয়েছে। প্রশাসনের উচিৎ এসব সুযোগ কাজে লাগানো।

“বিরাট কোহলি, ফ্যাফ ডু প্লেসির মতো বড় তারকারা টেস্ট ক্রিকেট নিষ্ঠার সাথে খেলছেন এটা বড় ব্যাপার এটাই ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সম্মান।”

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.