খালেদা জিয়ার মামলার নথি হাইকোর্টে Reviewed by Momizat on . জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের মামলায় দণ্ডিত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নথি লোয়ার কোর্ট রেকর্ড (এলসিআর) বিচারিক আদালত থেকে হাইকোর্টে পৌঁছেছে। আজ রোব জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের মামলায় দণ্ডিত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নথি লোয়ার কোর্ট রেকর্ড (এলসিআর) বিচারিক আদালত থেকে হাইকোর্টে পৌঁছেছে। আজ রোব Rating: 0
You Are Here: Home » slider » খালেদা জিয়ার মামলার নথি হাইকোর্টে

খালেদা জিয়ার মামলার নথি হাইকোর্টে

khaleda case doc

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের মামলায় দণ্ডিত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নথি লোয়ার কোর্ট রেকর্ড (এলসিআর) বিচারিক আদালত থেকে হাইকোর্টে পৌঁছেছে।

আজ রোববার দুপুর ১টার দিকে নথিটি আদালতে পৌঁছায়। এর আগে দুপুর সোয়া ১২টায় নথি একটি বক্সের ভেতরে করে ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালত থেকে পুলিশ ভ্যানে করে পেশকার মো. মোকারম হোসেন হাইকোর্টের উদ্দেশ্য নিয়ে যান। তিনি জানান, নথিতে পৃষ্ঠার সংখ্যা ৫ হাজার ৩৭৩টি।

এর আগে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে খালেদা জিয়া ওই মামলায় জামিন আবেদন করলে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের বেঞ্চ বিচারিক আদালতের এলসিআর তলব করেন। আদেশে ১৫ দিনের মধ্যে হাইকোর্টে নথি পাঠাতে বলা হয়। হাইকোর্টের আদেশ ২৫ ফেব্রুয়ারিই বিচারিক ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে পৌছায়। ফলে আজ ১১ মার্চ রোববার হাইকোর্ট নিধারিত ১৫ দিন শেষ হয়।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামান ওই মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৫ বছর সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। ওই রায়ের অনুলিপি গত ১৯ ফেব্রুয়ারি পাওয়ার পর গত ২০ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে আপিল দাখিল করেন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর আইনজীবীরা।

বিচারিক আদালতের দেয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি পাওয়ার পর গত ২০ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে আপিল করেন তার আইনজীবীরা। আপিল আবেদনে নিম্ন আদালতের দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে ৪৪টি যুক্তি দেখানো হয়। আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বিচারিক আদালতের দণ্ড স্থগিত চাওয়া হয়।

এ ছাড়া ৩২টি যুক্তি দেখিয়ে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন দেয়া হয়। এতে বলা হয়েছে, আবেদনকারীর বয়স ৭৩ বছর। তিনি শারীরিকভাবে বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছেন। তিনি ৩০ বছর ধরে গেঁটেবাত, ২০ বছর ধরে ডায়াবেটিস, ১০ বছর ধরে উচ্চরক্তচাপ ও রক্তে আয়রন ঘাটতিতে ভুগছেন।

এর পর গত ২২ ফেব্রুয়ারি আপিল গৃহীত হওয়ার পর গেত ২৫ ফেব্রুয়ারি জামিন আবেদনের উপর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

 

মামলাটিতে খালেদা জিয়ার বড় ছেলে দলটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৫ আসামি ১০ বছর করে কারাদণ্ডও প্রদান করা হয়। এ ছাড়া রায়ে আসামিদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা ৮০ পয়সা জরিমানা করা হয়।

দণ্ডিত অপর চার আসামি হলেন, সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান। দণ্ডিতদের মধ্যে তারেক রহমান, কামাল সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান পলাতক রয়েছেন।

About The Author

admin

সংবাদের ব্যাপারে আমরা সত্য ও বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাস করি।বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের সুমহান চেতনায়। আমাদের প্রত্যাশা একাত্তরের চেতনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক সুখী সমৃদ্ধশালী উন্নত দেশের পর্যায়ে।

Number of Entries : 7902

Leave a Comment

সম্পাদক : সুজন হালদার, প্রকাশক শিহাব বাহাদুর কতৃক ৭৪ কনকর্ড এম্পোরিয়াম শপিং কমপ্লেক্স, ২৫৩-২৫৪ এলিফ্যান্ট রোড, কাঁটাবন, ঢাকা থেকে প্রকাশিত। ফোনঃ 02-9669617 e-mail: info@visionnews24.com
Design & Developed by Dhaka CenterNIC IT Limited
Scroll to top