The news is by your side.

কাশ্মীরে সরকারি দফতরে গ্রেনেড বিস্ফোরণ, উত্তেজনা চরমে

0 19

 

গত বৃহস্পতিবার পর্যটকদের কাশ্মীর ভ্রমণে সকল নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে দেওয়া হয়। এর তিনদিনের মাথায় আজ শনিবার গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটল এই ভূস্বর্গে। তাও আবার এক সরকারি কার্যালয়ের সদর দফতরে।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, শনিবার সকালের দিকে ঘটনাটি ঘটেছে কাশ্মীরের অনন্তনাগ জেলায়। ওই জেলার ডেপুটি কমিশনারের সদর দফতরে এ গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে সেখানে।

জেলা স্তরের প্রশাসনিক ভবনের বাইরে সাধারণত বেশ জনসমাগম হয়ে থাকে। এদিনও তার ব্যতিক্রম হয়নি। জনবহুল জেলার ডেপুটি কমিশনারের কার্যালয়কেই সেই কারণে বেছে নিয়েছিল জঙ্গিরা। এদিন সকালের দিকে ভিড়পূর্ণ সেই প্রশাসনিক কার্যালয়ের সামনেই গ্রেনেড ছোঁড়ে জঙ্গিরা। ওই কার্যালয়ের সামনে উপস্থিত বহু মানুষ সেই ঘটনায় আহত হয়েছে। অনন্তনাগ জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই গ্রেনেড হামলায় অন্তত ১০ জনের অবস্থা গুরুতর। যাদের চিকিৎসার জন্য স্থানীয় হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বিকেল পর্যন্ত ওই ঘটনায় জড়িত কোনও ব্যক্তি বা জঙ্গিকে আটক করতে পারেনি সেনাবাহিনী বা পুলিশের কেউই । স্থানীয়দের সাহায্যেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। তবে এখনো কেউই এ ঘটনার দায় স্বীকার করেনি।

ঘটনার পরপরই কাশ্মীর জোন পুলিশ টুইট করে জানায় যে ওই অঞ্চলটি ঘিরে ফেলা হয়েছে এবং সন্ত্রাসবাদীদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। উপত্যকার বিভিন্ন জায়গায় জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ এবং সিআরপিএফ চিরুণী অভিযান চালাচ্ছে।

গত ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর থেকেই থমথমে অবস্থা গোটা উপত্যকার। জম্মু-কাশ্মীরকে একরকম অবরুদ্ধ অবস্থায় রেখেছে মোদি সরকার। তবে দুই মাসেরও বেশি সময় পর পরিস্থিতি আয়ত্ত্বে এসেছে মনে করে শনিবার সরকার ঘোষণা করে যে আগামী সোমবার থেকে জম্মু ও কাশ্মীরে পোস্টপেইড মোবাইল সংযোগগুলো ফের চালু করা হবে।

জম্মু-কাশ্মীরের অবরুদ্ধ পরিস্থিতির মধ্যেই গত ৫ অক্টোবরও দক্ষিণ কাশ্মীরের অনন্তনাগে গ্রেনেড হামলা হয়েছিল। জেলা কালেক্টরের কার্যালয়ের বাইরে হওয়া ওই হামলায় কমপক্ষে ১৪ জন আহত হন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.