একজন স্বপ্নচারীর চির প্রস্থান Reviewed by Momizat on . স্বপ্নচারী এক মেয়র আনিসুল হক। স্বপ্নের মতো করেই সাজাতে চেয়েছিলেন তার প্রিয় নগরীকে। দায়িত্বগ্রহণের পর কিছু সাহসী পদক্ষেপে তিনিই আশার আলো দেখিয়েছিলেন প্রাত্যহিক জ স্বপ্নচারী এক মেয়র আনিসুল হক। স্বপ্নের মতো করেই সাজাতে চেয়েছিলেন তার প্রিয় নগরীকে। দায়িত্বগ্রহণের পর কিছু সাহসী পদক্ষেপে তিনিই আশার আলো দেখিয়েছিলেন প্রাত্যহিক জ Rating: 0
You Are Here: Home » slider » একজন স্বপ্নচারীর চির প্রস্থান

একজন স্বপ্নচারীর চির প্রস্থান

Annisul

স্বপ্নচারী এক মেয়র আনিসুল হক। স্বপ্নের মতো করেই সাজাতে চেয়েছিলেন তার প্রিয় নগরীকে। দায়িত্বগ্রহণের পর কিছু সাহসী পদক্ষেপে তিনিই আশার আলো দেখিয়েছিলেন প্রাত্যহিক জীবনে নানান সমস্যায় জর্জরিত ঢাকাবাসীকে। প্রতিবন্ধকতা আর সীমাবদ্ধতার বেড়াজাল ছিন্ন করে সফলতার ফুল ফোটাতে চেয়েছিলেন তিনি এই নগরে।

২০১৫ সালে ডিএসসিসির মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণের পর ডিএনসিসি মার্কেট চালু, তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড সরিয়ে সড়ক উন্মুক্ত করা, শ্যামলী থেকে আমিনবাজার পর্যন্ত সড়ক পার্কিংমুক্ত ঘোষণা, ফুটপাত দখলমুক্ত করাসহ বেশ কিছু প্রশংসনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন আনিসুল হক। এছাড়া রাজধানীর সৌন্দর্য্য বর্ধনে নিয়েছিলেন বেশকিছু উদ্যোগ।

গত বছরের শুরুতে বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদকদের সঙ্গে এক বৈঠকে এমনই কিছু উদ্যোগের কথা জানিয়েছিলেন তিনি যার মধ্যে রয়েছে রাজধানীকে সুন্দর করতে যানজট নিরসনে তেজগাঁওসহ ১০টি এলাকার রাস্তা দখলমুক্ত করা, ২২টি ইউলুপ নির্মাণ, ৩ হাজার বাস নামানো, বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ৭২টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন স্থাপন, সবুজায়নে ইকো বাস সার্ভিস চালু, ২০ হাজার বিলবোর্ড উচ্ছেদ ও পরিকল্পিত বিলবোর্ড স্থাপন, জলাবদ্ধতা নিরসনে উদ্যোগ গ্রহণ, সড়কে এলইডি বাতি সংযোজন, প্রধান সড়কগুলোকে রিকশামুক্ত করা, গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন, পাবলিক টয়লেট স্থাপন।

ব্যক্তিগত আলাপচারিতা, রাজনৈতিক মাঠের বক্তব্য, টেলিভিশন উপস্থাপনা সব আসরেই কথার জাদুতে দর্শক-শ্রোতাকে মুগ্ধ রাখার এক অসাধারণ ক্ষমতা ছিল আনিসুল হকের। আশি ও নব্বইয়ের দশকে নন্দিত টিভি উপস্থাপক হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিলেন আনিসুল হক। তার উপস্থাপনায় ‘আনন্দমেলা’ ও ‘অন্তরালে’ অনুষ্ঠান দুটি জনপ্রিয়তা পায়।

তবে পরে টেলিভিশনের পর্দায় মানুষ তাকে বেশি দেখেছিল ব্যবসায়ী নেতা হিসেবেই। এরপর ২০০৫ থেকে ২০০৬ সালে পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন এবং ২০০৮ সালে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি।

তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী আনিসুল হক ২০১৫ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। অল্প সময়ের মধ্যে সিটি করপোরেশন এলাকায় জনমুখী কাজ করে আলোচনায় আসেন তিনি।

২০১৬ সালের নভেম্বরে বনানী ২৭ নম্বর সড়কের কুখ্যাত স্বাধীনতাবিরোধী আব্দুল মোনেম খাঁর পরিবারের অবৈধ দখলে থাকা ১০ কাঠা জমি উদ্ধারে নেতৃত্ব দেন আনিসুল হক। স্থাপনা গুঁড়িয়ে দিয়ে ৫০ বছর ধরে বেদখল থাকা জমিটি উদ্ধার করে ডিএনসিসি।

এছাড়া নগরীতে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা-দুর্ঘটনায় দিনেরাতে ছুটে গিয়েছেন আনিসুল হক। যথাসাধ্য চেষ্টা করেছেন মানুষের কাছাকাছি থাকতে, তাদের কথা শুনতে।

নানান সীমাবদ্ধতার মাঝেও সমস্যা মোকাবিলায় আন্তরিকতার কোনো অভাব ছিলো না তাঁর। সত্যিকারের তিলোত্তমা নগরী গড়ে তোলার প্রয়াস ছিলো তাঁর শেষ পর্যন্ত। সকল প্রতিবন্ধকতা, জটিলতা আর অনিয়মের সঙ্গে যুদ্ধ করেই যিনি গড়তে চেয়েছিলেন স্বপ্নের নগরী প্রিয় ঢাকাকে। তিনি চলে গেছেন, তার প্রিয় নগরী ছেড়ে, পৃথিবী ছেড়ে। কিন্তু রেখে গেছেন আধুনিক নগরী বিনির্মাণের বর্ণিল স্বপ্নকে। বিদায় আনিসুল হক! বিদায়!

About The Author

admin

সংবাদের ব্যাপারে আমরা সত্য ও বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাস করি।বিশ্বাস করি, মুক্তিযুদ্ধের সুমহান চেতনায়। আমাদের প্রত্যাশা একাত্তরের চেতনায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাক সুখী সমৃদ্ধশালী উন্নত দেশের পর্যায়ে।

Number of Entries : 7842

Leave a Comment

সম্পাদক : সুজন হালদার, প্রকাশক শিহাব বাহাদুর কতৃক ৭৪ কনকর্ড এম্পোরিয়াম শপিং কমপ্লেক্স, ২৫৩-২৫৪ এলিফ্যান্ট রোড, কাঁটাবন, ঢাকা থেকে প্রকাশিত। ফোনঃ 02-9669617 e-mail: info@visionnews24.com
Design & Developed by Dhaka CenterNIC IT Limited
Scroll to top