The news is by your side.

আওয়ামী লীগ কর্মীদের প্রতিষ্ঠান

0 5

 

 

 

 

তোফায়েল আহমেদ

বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে আমি শুনেছি, তিনি আমাকে বলেছিলেন, ‘পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করেছি যে, এই পাকিস্তান বাঙালিদের জন্য হয় নাই। একদিন বাঙালির ভাগ্য-নিয়ন্তা বাঙালিদেরই হতে হবে। সেই লক্ষ্য নিয়েই প্রথমে তোমাদের ছাত্র-সংগঠন ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেছি। তারপর ২৩ জুন এই ঐতিহাসিক দিনটি বেছে নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেছি। লক্ষ্য ছিল একদিন বাংলাদেশকে স্বাধীন করা। জাতির জনক যে লক্ষ্য নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সেই লক্ষ্য পূরণ হয়েছে। ’৫২-এর ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ, ’৫৪-এর যুক্তফ্রন্টের নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ, ’৬২-এর সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ধাপে ধাপে বাংলার মানুষকে মহান জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ করেছেন। ’৬২ তে আমাদের  স্লোগান ছিল ‘জাগো জাগো বাঙালি জাগো; ‘পদ্মা মেঘনা যমুনা, তোমার আমার ঠিকানা ।  ’৬৬ তে বঙ্গবন্ধু ৬ দফা দিয়েছিলেন লাহোরে। তখন তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ফেব্রুয়ারির ৫ তারিখে ৬ দফা দিলেন। বিমান বন্দরে জাতির সামনে ৬ দফা পেশ করলেন। ১৮, ১৯ ও ২০ মার্চ ১৯৬৬ সালে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে জাতির জনক আওয়ামী লীগের সভাপতি হলেন এবং শহীদ জাতীয় নেতা তাজউদ্দীন আহমেদ সাধারণ সম্পাদক হলেন।  ৬ দফা দেওয়ার পর বঙ্গবন্ধু আমাদের বলতেন ‘সাঁকো দিলাম, এই সাঁকো দিয়েই একদিন আমরা স্বাধীনতায় পৌঁছাবো। ছয়-দফা ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামের বীজমন্ত্র তথা অঙ্কুর। কাউন্সিল অধিবেশনের শেষদিন অর্থাৎ ২০ মার্চ চরম প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যে ঢাকার পল্টন ময়দানের জনসভায় দলীয় নেতা-কর্মী ও দেশবাসীর উদ্দেশে উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘চরম ত্যাগ স্বীকারের এই বাণী লয়ে আপনারা দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়–ন। পূর্ব পাকিস্তানের প্রত্যন্ত প্রদেশের প্রতিটি মানুষকে জানিয়ে দিন, দেশের জন্য, দশের জন্য, অনাগতকালে ভাবী বংশধরদের জন্য সবকিছু জেনে-শুনেই আওয়ামী লীগের নেতা ও কর্মীরা এবার সর্বস্ব পণ করে নিয়মতান্ত্রিক পথে ছয় দফার ভিত্তিতে দেশব্যাপী আন্দোলনের জন্য এগিয়ে আসছে। সেদিনের বক্তৃতায় তিনি আরো বলেছিলেন ‘ছয়-দফার প্রশ্নে কোনো আপোষ নাই। রাজনীতিতে কোনো সংক্ষিপ্ত পথ নাই। নেতৃবৃন্দের ঐক্যের মধ্যেও  নির্দিষ্ট আদর্শ ও সেই আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য নিবেদিত প্রাণ কর্মীদের ঐক্যেই আওয়ামী লীগ বিশ্বাস করে। আওয়ামী লীগ নেতার দল নয়-এ প্রতিষ্ঠান কর্মীদের প্রতিষ্ঠান। সত্যিকার অর্থেই আওয়ামী লীগ কর্মীদের প্রতিষ্ঠান। ৬ দফা দেওয়ার পর বঙ্গবন্ধুকে আগরতলা মামলার আসামী হিসাবে ফাঁসি দেবার চেষ্টা করা হলো। আমরা জাগ্রত ছাত্র সমাজ সর্বদলীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদ গঠন করে রাজপথে নেমে এসে গণঅভ্যুত্থান সৃষ্টি করেছিলাম। আসাদ, মকবুল, রুস্তম, মতিয়ুর সহ অসংখ্য শহীদের বিনিময়ে। তখন আমরা স্লোগান দিতাম ‘পাঞ্জাব না বাংলা, পিন্ডি না ঢাকা । এইভাবে ধাপে ধাপে আমরা আন্দোলন এগিয়ে নিয়ে গিয়েছি এবং জাতির পিতাকে ফাঁসির মঞ্চ থেকে ’৬৯-এর ২২ ফেব্রুয়ারি মুক্ত করে ২৩ ফেব্রুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতির পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞ চিত্তে বঙ্গবন্ধু উপাধি দিয়েছি। তারপরে আওয়ামী লীগ ’৭০-এর নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। যখন ১ মার্চ জাতীয় সংসদের পূর্বঘোষিত ৩ মার্চের অধিবেশন একতরফাভাবে স্থগিত ঘোষণা করলো ইয়াহিয়া খান তখন দাবানলের মতো আগুন জ্বলে উঠলো। রাজপথে লক্ষ লক্ষ লোক নেমে আসলো। শুরু হলো আরেক দফা আন্দোলন। তারপর জাতির জনক ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঐতিহাসিক বক্তৃতা দিয়ে নিরস্ত্র বাঙালি জাতিকে সশস্ত্র জাতিতে রূপান্তরিত করলেন। শেষ করলেন এই কথা বলে, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। এই বক্তৃতাটইি ছিল আমাদের ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।  বঙ্গবন্ধু ৯ মাস মিয়ানওয়ালী কারাগারে কারারুদ্ধ অবস্থায় যখন মৃত্যুর প্রহর গুনছেন, আমরা তখন হাতিয়ার তুলে নিয়ে যুদ্ধ করে ১৬ ডিসেম্বর দেশকে স্বাধীন করেছি। সুতরাং জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের এই যে ইতিহাস, তার শুরু আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই; সুতরাং আওয়ামী লীগের অর্থই হলো সংগ্রাম। বাংলাদেশ, আওয়ামী লীগ এবং বঙ্গবন্ধু এই তিনটি নাম একীভ‚ত। বঙ্গবন্ধুই একমাত্র নেতা যিনি সমগ্র বাংলার মানুষকে একই মোহনায় দাঁড় করাতে সমর্থ হয়েছিলেন। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ’৭১-এ ৩০ লক্ষ শহীদ আর ৫ লক্ষ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছি। ’৭২-এর ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু ফিরে এলেন স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে। যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের দায়িত্ব নিয়ে যখন তিনি দেশটাকে স্বাভাবিক করলেন, তখন ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট সেনাবাহিনীর কতিপয় বিপথগামী বিশ্বাসঘাতকের হস্তে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু নির্মমভাবে নিহত হন। ওই সময় তাঁর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রবাসে থাকায় ঘাতকদের হাত থেকে রেহাই পান।  ১৯৮১ সনের ১৩ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশন। কাউন্সিলে অনেক আলাপ-আলোচনার পর জাতীয় ও দলীয় ঐক্যের প্রতীক হিসেবে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাঁকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। আমরা সাব্যস্ত করি মহান জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের নেতৃত্বপ্রদানকারী দল আওয়ামী লীগের পতাকা তাঁরই হাতে তুলে দেবো। মাত্র ৩৪ বছর বয়সে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত হন শেখ হাসিনা। একই বছরের ১৭ মে তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে ফিরে আসেন।  ওইদিন ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের ৭৩৭ বোয়িং বিমানে ভারতের রাজধানী দিল্লি থেকে কলকাতা হয়ে সে-সময়ের ঢাকা কুর্মিটোলা বিমানবন্দরে বিকাল সাড়ে ৪টায় এসে পৌঁছেন। সারাদেশ থেকে লক্ষ লক্ষ মানুষ তাঁকে সম্বর্ধনা জানাতে সেদিন বিমানবন্দরে সমবেত হয়। ওই সময় লাখো জনতা ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু শ্লোগানে আকাশ-বাতাস মুখরিত করে শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানিয়ে বলেছিল,- ‘শেখ হাসিনার আগমন শুভেচ্ছা-স্বাগতম; ‘শেখ হাসিনা তোমায় কথা দিলাম, মুজিব হত্যার বদলা নেবো; ‘ঝড়-বৃষ্টি আঁধার রাতে, আমরা আছি তোমার সাথে; ‘বঙ্গবন্ধুর রক্ত বৃথা যেতে দেবো না; ‘আদর্শের মৃত্যু নেই, হত্যাকারীর রেহাই নেই; ‘মুজিব হত্যার পরিণাম, বাংলা হবে ভিয়েতনাম।   তিন যুগ সাফল্যের সাথে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়ে যোগ্যতার সাথে দলকে গণরায়ে অভিষিক্ত করে চারবার সরকারে অধিষ্ঠিত হয়ে রাষ্ট্র পরিচালনায় যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন তিনি। নিষ্ঠার সাথে, সততার সাথে, অত্যাচার-অবিচার সহ্য করে, জেল-জুলুম নির্যাতন ভোগ করে আওয়ামী লীগকে বাংলার মানুষের কাছে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ’৮১-এর সম্মেলনে সবাই ধরে নিয়েছিল আওয়ামী লীগ দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যাবে। কিন্তু আমরা জীবন-পণ চেষ্টা করে সকল ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে আওয়ামী লীগের ঐক্য ধরে রেখে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার উপর দলের নেতৃত্বভার অর্পণ করেছিলাম। যেদিন তিনি ফিরে এলেন সেদিন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মনে করেছিল তারা শেখ হাসিনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকেই যেন ফিরে পেয়েছে। ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট ও ৩ নভেম্বরের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর আওয়ামী লীগের জন্য রাজনীতি কঠিন করে তুলেছিল স্বৈরশাসক জেনারেল জিয়া। গত শতাব্দীর ’৭০-এর দশকের শেষ এবং ’৮০-এর দশকের শুরু থেকেই গণতন্ত্রমনা দেশপ্রেমিকদের জন্য দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন বিষিয়ে তুলেছিল এই সামরিক শাসক। সংবিধান স্থগিত করে রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়েছিল। রাজনীতিকদের বেচা-কেনার সামগ্রীতে পরিণত করে রাষ্ট্রীয় মদতে দলভাঙার নীতি অবলম্বন করা হয়েছিল। জেনারেল জিয়া সদম্ভে ঘোষণা করেছিল, ‘মানি ইজ নো প্রোবলেম এবং ‘আই উইল মেক পলিটিক্স ডিফিকাল্ট ফর পলিটিশিয়ানস।  জেল, জুলুম, হুলিয়া, গুম-খুন ইত্যাদি ছিল নিত্যকার ঘটনা। প্রতিদিন সান্ধ্য আইন জারি ছিল। চারদিকে গড়ে তোলা হয়েছিল এক সর্বব্যাপী ভয়ের সংস্কৃতি। ’৭৬-এর ১ আগস্ট সামরিক শাসক জেনারেল জিয়া সীমিত পরিসরে ‘ঘরোয়া রাজনীতি করার অনুমতি দেয়। আমরা যারা জেলে ছিলাম এবং যারা জেলের বাইরে ছিলেন তারা দলকে সংগঠিত করেছিলেন। তখন প্রয়াত মহিউদ্দীন আহমেদকে সভাপতি ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক করে আওয়ামী লীগ পরিচালিত হয়। রাজনৈতিক নিপীড়নের মধ্যে ’৭৭-এর ৩ ও ৪ এপ্রিল মতিঝিলের হোটেল ইডেন প্রাঙ্গণে আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে কয়েক হাজার নেতাকর্মী সমবেত হয়। নেতৃবৃন্দ মতবিরোধ নিরসন করে দলীয় ঐক্য ও সংহতি রক্ষার্থে সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীনকে আহ্বায়ক করে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে। ’৭৭-এর এপ্রিলে আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হওয়ার এক বছর পর ’৭৮-এর ৩ থেকে ৫ মার্চ ঢাকায় আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। কারান্তরালে থাকা অবস্থায়ই আমাকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত করা হয়। সেই দুর্দিনে জাতির জনক ও জাতীয় নেতাদের অনুপস্থিতিতে দলকে সংগঠিত করতে ঐতিহাসিক ভ‚মিকা পালন করেন সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন।  ১৫ আগস্টের পর থেকেই আমাকে প্রথমে গৃহবন্দি ও পরে গ্রেপ্তার করে অমানুষিক শারীরিক নির্যাতন করে খুনীচক্র এবং সেপ্টেম্বরের ৫ তারিখে কারান্তরালে নিক্ষেপ করে। কারাজীবনের কুড়ি মাস ছিলাম ময়মনসিংহ কারাগারে এবং ১২ মাস কুষ্টিয়া কারাগারে। প্রায় ৩৩ মাস কারাগারে আটক থাকার পর আমার ও আব্দুর রাজ্জাকের মুক্তির ব্যাপারে হাইকোর্টে রিট করলে প্রথমে রাজ্জাক ভাই এবং ৪ মাস পর-’৭৮-এর ১২ এপ্রিল-আমি মুক্তিলাভ করি। কারামুক্তির পর দলকে সুসংগঠিত ও ঐক্যবদ্ধ করতে দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতৃত্বে¡র সাথে সারাদেশ চষে বেড়াই। এরমধ্যেও দলের অভ্যন্তরে ছিল নানারকম মতবিরোধ। সবধরণের দলীয় মতানৈক্য দূর করে মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বপ্রদানকারী প্রাণপ্রিয় দল, আপামর বাঙালির মুক্তির ঠিকানা আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে সামরিক শাসন বিরোধী গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগঠিত করে আমরা উদয়াস্ত পরিশ্রম করে চলি। ’৭৮-এর সম্মেলনে আবদুল মালেক উকিল সভাপতি, আবদুর রাজ্জাক সাধারণ সম্পাদক ও আমি সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হই।  ’৮১-এর সম্মেলনে সবারই ধারণা ছিল আওয়ামী লীগ দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যাবে। সম্মেলনের সমাপ্তি দিবসে সন্ধ্যার প্রাক্কালে সকলের সিদ্ধান্ত অনুসারে আমি যখন দলীয় প্রধান হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যার নাম প্রস্তাব করি, তখন তা সর্বসম্মতিতে গৃহীত হয়। সেকি আনন্দ-উচ্ছাস, সেকি দৃশ্য! চোখের সামনে সেই ছবি ভেসে ওঠে। যা আজ ভাষায় ব্যক্ত করতে পারবো না। মনে হয়েছে যে আবার আমরা বঙ্গবন্ধুর রক্তের কাছে, যে রক্তের কাছে আমরা ঋণী,-যে ঋণ কোনদিন শোধ করতে পারবো না-সেই রক্তের উত্তরাধিকার শেখ হাসিনার হাতে দলীয় পতাকা তুলে দিয়ে ঋণের বোঝাটা হয়তো কিছুটা হালকা করতে পেরেছি। সেদিন সভানেত্রী হিসেবে শেখ হাসিনার নাম শুনে নেতাকর্মীরা উল্লাসে ফেটে পড়ে এবং বিপুল করতালির মাধ্যমে দলের সিদ্ধান্তকে অভিনন্দিত করে। শেখ হাসিনা সভানেত্রী, পুনরায় সাধারণ সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদক পদে আবদুর রাজ্জাক এবং আমি নির্বাচিত হই। আওয়ামী লীগের পতাকা হাতে তুলে নিয়ে নিষ্ঠার সাথে কাজ করে স্বৈরশাসন বিরোধী আন্দোলন সংগঠিত করে দীর্ঘ ২১ বছর পর ’৯৬-এ আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রপরিচালনার দায়িত্বে আসীন করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বে জাতীয় ঐকমত্যের সরকার গঠন করে আমরা মন্ত্রী হয়েছি, ৫ বছর নিষ্ঠার সাথে রাষ্ট্র পরিচালনা করে আমাদের হারানো গৌরব স্বাধীনতার সুমহান চেতনা প্রতিষ্ঠার পথে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পরে স্বাধীনতার মূল্যবোধকে ধ্বংস করার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু দীর্ঘকাল সংগ্রাম করে রাষ্ট্রপরিচালনার দায়িত্ব লাভ করে আমরা প্রমাণ করতে পেরেছি যে, ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছে, কিন্তু বঙ্গবন্ধুর দল এবং তার আদর্শকে হত্যা করতে পারে নাই। শুরু হয়েছিল আমাদের নূতন যাত্রা। যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স চাপিয়ে দিয়েছিল, তাদের পরাস্ত করে ইনডেমনিটি আদেশ বাতিল করে বিচারের পথ প্রশস্ত করেছিলাম। ২০০১-এ ক্ষমতায় এসে খালেদা জিয়া সেই বিচারের পথ বন্ধ করে দেয়। আবার ২০০৮-এর নির্বাচনে ভ‚মিধ্বস বিজয় লাভ করে আওয়ামী লীগ। ২০০৯-এ সরকার গঠন করে সেই বিচারের কাজ শেষ করে আদালতের রায় বাস্তবায়নের পথ করে বাংলার মাটিতে খুনীদের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি প্রধানমন্ত্রী না হতেন তাহলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কোনদিন বাংলার মাটিতে হতো না। যেখানে বিএনপি যুদ্ধাপরাধী-মানবতাবিরোধী অপরাধীদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়ে বাঙালি জাতিকে কলঙ্কিত করেছিল, সেখানে আওয়ামী লীগ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে বাংলার মানুষকে কলঙ্কমুক্ত করে। আওয়ামী লীগ আমলে আমরা যদি দেশের উন্নয়নের দিকে তাকাই তাহলে দেখবো যে, বিস্ময়কর উত্থান এই বাংলাদেশের। বঙ্গবন্ধুর দুটি স্বপ্ন ছিল-এক, বাংলার স্বাধীনতা; দুই, শোষণমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে দুখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো। আজ জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বাংলার মানুষ সেই অর্থনৈতিক মুক্তি পেতে চলেছে। স্বাধীনতার পরে বঙ্গবন্ধু যখন দায়িত্বভার গ্রহণ করেন তখন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে খাদ্যাভাব ছিল, এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলে খাদ্যশস্যে আমরা উদ্বৃত্ত শুধু নই, বাংলাদেশ এখন খাদ্য রপ্তানীকারক দেশ। মানব সূচক উন্নয়নে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় বিস্মিত জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, ‘অন্যান্য স্বল্পোন্নত দেশের উচিত বাংলাদেশকে অনুসরণ করা। সুতরাং, সামাজিক জীবনের সকল ক্ষেত্রেই আজ আমরা শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে এগিয়ে চলেছি। শিক্ষার হার বেড়েছে, দারিদ্র্যের হার কমেছে। আন্তর্জাতিক বিশ্বে আমরা যখন যাই তখন আমাদেরকে যারা একদিন তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে বলেছিল, ‘তলাবিহীন ঝুড়ি, আজ তারাই বলে বিস্ময়কর উত্থান বাংলাদেশের।  জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটানা ১৪ বছর দলের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করেছি। তারপর আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য হিসেবেও তাঁর কাছে থেকে কাজ করেছি। এছাড়াও মন্ত্রীসভার সদস্য হিসেবে তাঁকে কাছ থেকে দেখেছি। আমার বারবার মনে হয়েছে যখন তার কাছে বসি বা ক্যাবিনেট মিটিং করি বা সভা-সফর করি, তখন বঙ্গবন্ধুর কথা আমার স্মৃতির পাতায় ভেসে ওঠে। বঙ্গবন্ধুর জীবনে রাজনৈতিক বৈশিষ্ট্য ছিল তিনি যা বিশ্বাস করতেন তাই করতেন; একবার সিদ্ধান্ত নিয়ে তার সাথে আপোষ করতেন না এবং ফাঁসির মঞ্চে গিয়েও মাথা নত করতেন না। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাও আমাদের জাতির জনকের কাছ থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে সেই আদর্শ অর্জন করেছেন। তিনিও লক্ষ্য নির্ধারণ করে কাজ করেন এবং সেই লক্ষ্য পূরণে থাকেন অবিচল। তাঁর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা আছে।  শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবন পর্যালোচনা করলে আমরা দেখবো তিনি তাঁর পিতার মতোই একজন দূরদর্শী রাজনৈতিক নেতা। একাত্তরের ঘাতক মানবতাবিরোধী-যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং বিনা রক্তপাতে একজনকেও হত্যা বা গ্রেফতার না করে ৫ মে রাতে ষড়যন্ত্রকারী হেফাজতীদের শাপলা চত্বর থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাধ্যমে বিতাড়িত করে স্বাধীন বাংলাদেশে নব-ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪-এর ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠানের দৃঢ় সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও তা বাস্তবায়ন করে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষা এবং নিষ্ঠার সাথে দেশকে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার পথে পরিচালিত করেছেন। শেখ হাসিনা আজ শুধু একজন প্রধানমন্ত্রী নন, তিনি বাংলার মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির প্রতীক ও সারাবিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। প্রিয় মাতৃভ‚মির স্বার্থকে সমুন্নত রাখতে জননেত্রী শেখ হাসিনা অঙ্গীকার করে বলেছিলেন, ‘৫০ বছরের গ্যাসের মজুদ না রেখে আমি গ্যাস রফতানি করবো না। সেই অঙ্গীকার তিনি সমুন্নত রেখেছেন এবং দেশের জ্বালানী ও বিদ্যুৎ খাতকে শক্তিশালী করতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। শেখ হাসিনা সর্বশেষ জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে খোদ আমেরিকাসহ উন্নত বিশ্বের জাতিগত পক্ষপাতিত্বের কথা খুবই স্পষ্ট করে বলেছেন। শেখ হাসিনাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি ও জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন টেলিফোনে অনুরোধ করে কাদের মোল্লার ফাঁসির আদেশ রহিত করতে অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু জনসাধারণের কাছে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ শেখ হাসিনাকে টলাতে পারেননি। ফারাক্কার পানি বণ্টনে বঙ্গবন্ধু সরকার শুষ্ক মৌসুমে পেয়েছিল ৪৪ হাজার কিউসিক পানির নিশ্চয়তা। সেই পানি কমতে কমতে বেগম খালেদা জিয়ার আমলে ৯ হাজার কিউসিকে নেমেছিল।  আওয়ামী লীগ ২১ বছর পর রাষ্ট্র পরিচালনায় সুযোগ পেয়ে প্রথমেই পানি সমস্যার সমাধানে ঐতিহাসিক গঙ্গা চুক্তি করেছে। চুক্তি অনুযায়ী পাওয়ার কথা ৩৪,০০০ হাজার কিউসিক, অথচ শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বের কারণে শুষ্ক মৌসুমে ৬৪ হাজার কিউসিক পর্যন্ত পানি পাওয়া গেছে। বঙ্গবন্ধুর মতো শেখ হাসিনারও রাজনীতির লক্ষ্য-উদ্দেশ্য খুবই পরিষ্কার ও স্বচ্ছ। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় আওয়ামী লীগের লড়াই ছিল অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে আওয়ামী লীগের প্রাপ্ত ভোট বৃদ্ধি পেয়েছে। একটা সময় ছিল যখন আওয়ামী লীগের ঘোর সমর্থকও অনেকে মন করতো আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত এবং অন্ধকারাচ্ছন্ন; রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব প্রাপ্তি যেন এক দুঃস্বপ্ন। কিন্তু শেখ হাসিনার বাস্তবোচিত রাজনৈতিক কর্মতৎপর আওয়ামী লীগ চারবার গণরায় নিয়ে রাষ্ট্র ও সরকার পরিচালনার দায়িত্বভার লাভ করেছে। আজ সমগ্র বিশ্বে বিশেষ করে কৃষি উৎপন্ন পথিকৃৎ বাংলাদেশ।  ’৯৬-এ আওয়ামী লীগ যখন রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে তখন দেশের খাদ্য ঘাটতি ছিল ৪০ লাখ মেট্রিক টন। সেই খাদ্য ঘাটতি পূরণ করে বাংলাদেশকে তিনি উন্নীত করেছেন খাদ্য রপ্তানীকারক দেশে। ধান, গম ও ভুট্টা জাতীয় ফসলে বিশ্বের গড় উৎপন্নের পেছনে ফেলে ক্রমেই অগ্রসরমান বাংলাদেশ। বর্তমান বিশ্বে প্রতি হেক্টর জমিতে গড় উৎপাদন প্রায় ৩ টন আর বাংলাদেশে তা ৪ দশমিক ১৫ টন। ২০১৪-এর ৭ সেপ্টেম্বর ইউনেস্কো প্রধান ইরিনা বোকোভা শেখ হাসিনার হাতে ‘শান্তি বৃক্ষ পদক তুলে দেওয়ার সময় বলেছিলেন, ‘সাহসী নারী শেখ হাসিনা সারা পৃথিবীকে পথ দেখাচ্ছেন।’২০০৮-এর নির্বাচনে জয়লাভের পর সফলভাবে ভারতের সাথে সীমান্ত চুক্তি ও সমুদ্র সীমা নির্ধারণ চুক্তি করেছেন। বিশ্বব্যাংকের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে তিনি দৃঢ়তার সাথে পদ্মা সেতু নির্মাণের মহতী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। আসলেই শেখ হাসিনা না থাকলে পদ্মা সেতু হতো না। বঙ্গবন্ধু সেতু, বঙ্গবন্ধু সেতুতে রেলপথ নির্মাণ, কর্ণফুলি নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণের উদ্যোগ, মেট্রো রেল নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ এসবই তাঁর নেতৃত্বে যুগান্তকারী কাজ। দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে তিনি বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটিয়েছেন। পূর্বসূরীদের রেখে যাওয়া বিদ্যুতের বিপুল ঘাটতি সাফল্যের সাথে মোকাবেলা করে জনজীবন থেকে লোডশেডিং দূর করেছেন। বিগত সাত বছরে রাজধানী ঢাকার উন্নয়নে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা গ্রহণ করেছেন। যার ফলে ঢাকার চেহারাই পাল্টে গিয়েছে। নয়নাভিরাম হাতিরঝিল প্রকল্প, চলাচলের সুবিধার জন্য নিত্য-নতুন ফ্লাইওভার শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের অবদান।  ২০০৭-এর ১/১১-এর পরে ১৬ জুলাই যেদিন শেখ হাসিনাকে বন্দী করা হয়, সেদিন তিনি জিল্লুর রহমান সাহেবকে দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বভার অর্পণ করেন। সেদিনই আমি জিল্লুর রহমানের বাসভবনে যাই। তিনি আমাকে বুকে টেনে নেন। তাঁকে জড়িয়ে ধরেই অঙ্গিকার করেছিলাম, শত প্রতিকূলতার মধ্যেও এই কঠিন দুঃসময়ে আপনার নেতৃত্বে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করবো। জিল্লুর রহমান সাহেব আমাকে দলের মুখপাত্র এবং চৌদ্দ দলের সমন্বয়কের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। নির্বাচন কমিশনের সাথে সংস্কার প্রস্তাব নিয়ে যে আলোচনা হয়, সেখানেও ১৭ সদস্যবিশিষ্ট কমিটির কনভেনর হিসেবে আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। আমি যথাযথভাবে সেই দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করেছি। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম ‘শেখ হাসিনা ছাড়া কোন নির্বাচন না, শেখ হাসিনা ছাড়া কোন সংলাপ না-সেই সিদ্ধান্ত আমরা অটুট রেখেছিলাম। যে কারণে  সেনাসমর্থিত সরকার স্ত্রী, কন্যা এবং আমার নামে মিথ্যা মামলা দেয়। আমার স্ত্রী ও মেয়েকে হাইকোর্টে গিয়ে জামিন নিতে হয়। এমন অবস্থা হয়েছিল যে, কঠিন অসুস্থতা সত্তে¡ও আমাকে বিদেশ যেতে দেওয়া হয়নি। সে এক কঠিন সময়। নির্বাচনে স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনতে শেখ হাসিনার দাবি তথা গণদাবি অনুযায়ী ১/১১’র সেনাসমর্থিত অন্তর্বর্তী সরকার স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স ও জাতীয় পরিচয় পত্রের দাবি মেনে নিয়ে তা প্রণয়নে বাধ্য হয়েছিল। কারাগার থেকে মুক্তিলাভের পর জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতির সামনে ঘোষণা করেছিলেন রূপকল্প-২০২১। তাতে তিনি প্রধান দুটি অঙ্গিকার ঘোষণা করেছিলেন এক. ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন দুই. মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তর। তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে দুটোই এখন বাস্তব।  শতরকম প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে জাতির জনকের হাতে গড়া দল আওয়ামী লীগ জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে এখন রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিত। সংবিধান এবং সাংবিধানিক শাসন সমুন্নত রাখতে আওয়ামী লীগ বদ্ধপরিকর। কেননা আওয়ামী লীগ নিয়মতান্ত্রিক দল, গণতান্ত্রিক দল। আর নিয়মতান্ত্রিক দল বলেই সেই ’৫৪ সন থেকে অনুষ্ঠিত-’৮৮-এর এবং ’৯৬-এর ১৫ ফেব্রুয়ারির প্রহসনের নির্বাচন বাদে-প্রতিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশগ্রহণ করেছে। এমনকি স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের আমলে অনুষ্ঠিত বেসিক ডেমোক্রেটিক ব্যবস্থায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশগ্রহণ করেছিল। আমাদের প্রয়াত জাতীয় নেতৃবৃন্দের অন্যতম জাতীয় নেতা শহীদ কামারুজ্জামান, আবদুল মালেক উকিল, মিজানুর রহমান চৌধুরীসহ অনেকেই এমএনএ নির্বাচিত হয়েছিলেন। আবার যখন আইয়ুব খান প্রেসিডেন্ট ইলেকশন করেন তখন ফাতেমা জিন্নাহ’র সমর্থনে বঙ্গবন্ধু সমগ্র পূর্ব পাকিস্তানে নির্বাচনী প্রচারকার্য সংগঠিত করেন। যখন সামরিক শাসনে এলএফও-এর (লিগ্যাল ফ্রেমওয়ার্ক অর্ডার) অধীনে ’৭০-এ নির্বাচন করার প্রশ্ন আসে তখন অনেকেই নির্বাচন বর্জনের ডাক দেন।  কিন্তু বঙ্গবন্ধু নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঐতিহাসিক সিদ্দান্ত গ্রহণ করেন। তিনি বলতেন, ‘আসন্ন নির্বাচন আমার কাছে ৬ দফা ও ১১ দফার পক্ষে রেফারেন্ডাম। নির্বাচনে বাংলার মানুষ তাদের ম্যান্ডেট প্রদান করে বিশ্ববাসীকে দেখাবে কারা তাদের নেতা। নির্বাচনে পরে আমি এই এলএফও টুকরো টুকরো করে ছিঁড়ে ফেলবো। সুতরাং ইতিহাস থেকে এটি স্পষ্ট যে, আওয়ামী লীগ জনসাধারণের ভোটাধিকারে বিশ্বাস করে এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতা হস্তান্তরের সাংবিধানিক নির্দেশনা পালন করে। যারা ভোটাধিকারে বিশ্বাস করে না, যারা অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখে তাদের ধ্বংস অনিবার্য। আমরা যদি বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলসমূহের ইতিহাস পর্যালোচনা করি তবে দেখবো, একসময়ের দোর্দণ্ড প্রতাপশালী দল মুসলিম লীগ, শেরে বাংলার কৃষক প্রজা পার্টি এদের অস্তিত্ব এখন আর নাই। মাওলানা ভাসানীর নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ’৭০-এর নির্বাচন বর্জন করে বলেছিল, ‘ভোটের বাক্সে লাথি মারো-আজ তার বিলুপ্ত। অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের নেতৃত্বাধীন ন্যাপ ভগ্নদশায় নিপতিত।  কমিউনিস্ট পার্টি ক্ষয়িষ্ণু। প্রাচীন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে একমাত্র আওয়ামী লীগ বাংলার মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে আজও তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত হয়ে টিকে আছে। কেননা আওয়ামী লীগ গণসম্পৃক্ত রাজনৈতিক দল, গণবিচ্ছিন্ন নয়। যারা এসব ইতিহাস মনে রাখে না-নির্বাচন বর্জন করে, জনসাধারণের ভোটাধিকার কেড়ে নিতে জ্বালাও-পোড়াও করে আগুনে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের হত্যা করে মা-বোনের কোল খালি করে আর্থ-সামাজিক বিকাশকে ব্যাহত করতে চায় তারা অতিঅবশ্যই সমাজবিচ্ছিন্ন-গণবিচ্ছিন্ন এবং জনসাধারণ কর্তৃক পরিত্যাজ্য।   সুতরাং, সকলের শুভবুদ্ধির প্রয়োগ ঘটিয়ে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা অক্ষুণ্ন রেখে জাতীয় অগ্রগতিকে সমুন্নত রেখে চলতে পারলে আমরা ২০২১-এ মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪২-এ উন্নত দেশে রূপান্তরিত হতে সক্ষম হবো। জাতির পিতার আদর্শ ধারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের গৌরবময় সংগ্রামী পতাকা ঊর্ধ্বে তুলে ধরে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে সোনার মানুষ তৈরি করে সোনার বাংলা কায়েম করাই আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক অভিপ্রায়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.